• header_en
  • header_bn

Policy Brief on Governance in Public Procurement: Effectiveness of E-GP in Bangladesh

২০২১ সালের মধ্যে সমস্ত সরকারি পরিষেবা ডিজিটাল করার সরকারের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে ২০১১ সালের ২ জুন থেকে সরকারি ক্রয়ে স্বচ্ছতা ও দক্ষতা নিশ্চিত করতে ই-গভর্নমেন্ট প্রকিউরমেন্ট (সংক্ষেপে ই-জিপি) প্রবর্তিত হয়। এটি ‘সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিট’-এর অধীনে একটি ওয়েব পোর্টালের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে। একইসাথে পাবলিক প্রকিউরমেন্ট আইন ২০০৬ ও পাবলিক প্রকিউরমেন্ট বিধিমালা ২০০৮ অনুসারে ‘বাংলাদেশ ই-গভর্নমেন্ট প্রকিউরমেন্ট (ই-জিপি) গাইডলাইন ২০১১’ প্রণয়ন করা হয়, যা অনুসরণ করে সব সরকারি প্রতিষ্ঠানের ই-জিপি’র মাধ্যমে ক্রয় বাধ্যতামূলক। প্রাথমিকভাবে চারটি প্রতিষ্ঠানকে কেন্দ্র করে ই-জিপি বাস্তবায়ন শুরু হয় - স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি), সড়ক ও জনপথ (সওজ), পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো), এবং পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি)। ই-জিপি প্রবর্তনের প্রায় একদশক পর বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে ই-জিপি’র মাধ্যমে সরকারি ক্রয়ের ক্ষেত্রে কতটুকু অগ্রগতি হয়েছে তার ওপর বিস্তারিত গবেষণার ঘাটতির প্রেক্ষিতে টিআইবি একটি গবেষণা সম্পন্ন করেছে, যা ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে প্রকাশিত হয়েছে। এই পলিসি ব্রিফ উক্ত গবেষণায় প্রাপ্ত বিশ্লেষণের ওপর ভিত্তি করে প্রণীত।
পুরো পলিসি ব্রিফের জন্য এখানে ক্লিক করুন।