• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

টিআইবি’র উদ্যোগে ঢাকা ইন্টেগ্রিটি ডায়লগ-৩ অনুষ্ঠিত: অভিঘাত মোকাবিলায় সবুজ জলবায়ু তহবিল থেকে বরাদ্দ প্রাপ্তিতে ন্যায্যতা ও স্বচ্ছতার ওপর অংশগ্রহণকারীদের গুরুত্বারোপ

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি
 
টিআইবি’র উদ্যোগে ঢাকা ইন্টেগ্রিটি ডায়লগ-৩ অনুষ্ঠিত
অভিঘাত মোকাবিলায় সবুজ জলবায়ু তহবিল থেকে বরাদ্দ প্রাপ্তিতে ন্যায্যতা ও স্বচ্ছতার ওপর অংশগ্রহণকারীদের গুরুত্বারোপ
 
ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮: বৈশ্বিক মানদণ্ডের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নীতি বাস্তবায়নের মাধ্যমে সবুজ জলবায়ু তহবিল প্রাপ্তিতে স্বচ্ছতা ও ন্যায্যতা নিশ্চিতের আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় ও অন্তর্জাতিক পর্যায়ের জলবায়ু বিশেষজ্ঞগণ। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) আয়োজিত জলবায়ু বিষয়ক দিনব্যাপী এক আন্তর্জাতিক সংলাপে তারা এ আহ্বান জানান। 
ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘‘জলবায়ু অর্থায়ন ও সুশাসন বিষয়ে ইন্টেগ্রিটি ডায়ালগ ৩: সবুজ জলবায়ু তহবিলে ন্যায্যতা ও স্বচ্ছতা” শিরোনামে অনুষ্ঠিত এ সংলাপে নেপাল, কোরিয়া, জার্মানি, ভুটান, অস্ট্রেলিয়া ও বাংলাদেশ থেকে বিশেষজ্ঞগণ অংশগ্রহণ করেন। জলবায়ু অর্থায়নে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় ২০১৬ ও ২০১৭ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত সংলাপের ধারাবাহিকতায় এবারের সংলাপে সবুজ জলবায়ু তহবিল থেকে জলবায়ু পরবর্তনে সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর জন্য তহবিল নিশ্চিত ও প্রবাহে স্বচ্ছতা, ন্যায্যতা নিশ্চিত; উদ্ভ‚ত সুশাসনজনিত সমস্যা, সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জসমূহ চিহ্নিতকরণ; সবুজ জলবায়ু তহবিলে প্রবেশাধিকার ও সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় সুশাসনের মানদÐ বিবেচনায় আলোচনার মাধ্যমে ঐকমত্যে পৌঁছানো ও আলোচনালব্ধ জ্ঞান বিনিময় করাই ছিল এ সংলাপ আয়োজনের উদ্দেশ্য।
টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান এর সঞ্চালনায় সংলাপের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন  বাংলাদেশ সরকারের পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নিয়োজিত মাননীয় মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, এমপি। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়টিকে অত্যন্ত অগ্রাধিকার ইস্যু হিসেবে গ্রহণ করেছে। জলবায়ু পরিবর্তনজনিত সমস্যা সমাধানে শুধু সবুজ জলবায়ু তহবিলের (জিসিএফ) ওপর নির্ভর না করে বাংলাদেশ সরকার সমস্যা সমাধানে নিজেদের অর্থায়নেই ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করেছে। শুধু তা-ই নয়, জলবায়ু অভিযোজন বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে বাংলাদেশ সরকার এটিকে সম্প্রতি গৃহীত ডেল্টা প্ল্যান ২১০০ তে অন্তর্ভুক্ত করেছে। তিনি সবুজ জলবায়ু তহবিল থেকে জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর অর্থ প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বিদ্যমান জটিল প্রক্রিয়াকে সহজীকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। 
ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “সবুজ জলবায়ু তহবিল প্রাপ্তিতে বিদ্যমান জটিল প্রক্রিয়াসমূহ অপসারণ করে তা বাস্তব ও ব্যবহারকারীবন্ধব করার জন্য সম্মিলিত চাপ প্রয়োগ অব্যাহত রাখতে হবে এবং অংশীজনদের সম্পৃক্ত করে একটি শক্তিশালী পরিবেশ ও সামাজিক নিরাপত্তার নীতি প্রণয়ন করতে হবে।” তিনি জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত দেশসমুহ, বিশেষ করে দক্ষিণ এশীয় দেশসমূহের দক্ষতা বৃদ্ধি যেমন- সবুজ জলবায়ু তহবিল থেকে বরাদ্দ প্রাপ্তির জন্য প্রস্তাবনা তৈরি, অনুমোদিত প্রকল্পসমূহের কার্যকর বাস্তবায়ন প্রভৃতির জন্য সম্মিলিত প্রচেষ্টার ওপর জোর দেন।  
অনুষ্ঠানের সম্মানিত অতিথি বাংলাদেশের মহা হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় (সিএজি) এর ডেপুটি মহা হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন জলবায়ু অভিযোজন প্রকল্পসমূহে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং শুদ্ধাচারের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। জলবায়ু প্রকল্পসমূহ থেকে কাক্সিক্ষত ফলাফল পাওয়া যাচ্ছে না বলে উল্লেখ করে তিনি টেকসই অভিযোজন নিশ্চিতে সতর্কতার সাথে টেকসই প্রকল্প প্রণয়নের ওপর জোর দেন।    
‘সবুজ জলবায়ু তহবিল সংগ্রহে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও শুদ্ধাচার: চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক প্রথম অধিবেশনে পরিবেশ অধিদপ্তরের জলবায়ু পরিবর্তন ও আন্তর্জাকি চুক্তি বিষয়ক পরিচালক মির্জা শওকত আলীর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানের (স্পারসো) চেয়ারম্যান জিয়াউল হাসান এনডিসি, অস্ট্রেলিয়ার গ্রিফিথ বিশ^বিদ্যালয়ের গ্রিফিথ ক্লাইমেট চেইঞ্জ রেসপন্স প্রোগ্রামের রিসার্স ফেলো ড. এডওয়ার্ড মর্গেন, পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক ও এলডিসি বিষয়ক বাংলাদেশ ডেলিগেশনের সমন্বয়ক মো. জিয়াউল হক এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের উপসচিব নূর আহমেদ।
এর পর আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘ (আইইউসিএন) এর বাংলাদেশ প্রতিনিধি মো. রাকিবুল আমিন এর সঞ্চালনায় ‘সবুজ জলবায়ু তহবিলে ঝুঁকিপূর্ণ দেশসমূহের প্রবেশাধিকার: সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক অধিবেশনে বক্তব্য রাখেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল কোরিয়ার (টিআই-কোরিয়া) জলবায়ু পরিবর্তন শুদ্ধতা কর্মসূচির সমন্বয়ক আব্রাহাম কামিনো সুমালিনগ, সাতক্ষীরা পৌরসভার মেয়র মো. তাজকিন আহমেদ, কেএফডবিøউ বাংলাদেশের আরবান ক্লাইমেট রিজিলিয়ান্স বিশেষজ্ঞ এস. এম. মেহেদী আহসান এবং টিআইবি’র জলবায়ু অর্থায়নে সুশান ইউনিটের জ্যেষ্ঠ কর্মসূচি ব্যবস্থাপক মো. জাকির হোসেন খান। 
‘সবুজ জলবায়ু তহবিল ও প্রকল্পসমূহের বণ্টন, পরিবীক্ষণ ও ব্যবহার: সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক তৃতীয় অধিশনটি সঞ্চালনা করেন টিআইবি’র উপদেষ্টা-নির্বাহী ব্যবস্থাপনা অধ্যাপক ড. সুমাইয়া খায়ের। এ অধিবেশনে বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইফতেখার হোসেন, টিআই-কোরিয়া’র জলবায়ু পরিবর্তন শুদ্ধতা কর্মসূচির সমন্বয়ক আব্রাহাম কামিনো সুমালিনগ, ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড (ইডকল) এর সবুজ জলবায়ু তহবিল ইউনিটের প্রধান মো. মোসলেহ উদ্দীন, ওয়াটার ইন্টেগ্রিটি নেটওয়ার্কের কর্মসূচি সমন্বয়ক বিনায়ক দাস এবং টিআইবি’র ক্লাইমেট ফাইন্যান্স ইন্টেগ্রিটি প্রোগ্রামের কর্মসূচি ব্যবস্থাপক মো. মাহফুজুল হক।
উল্লেখ্য, টিআইবি’র উদ্যোগে ইতিপূর্বে ২০১৬ এর ২৯ মার্চ ও ২০১৭ সালের ১৮-১৯ সেপ্টেম্বর জলবায়ু অর্থায়নে সুশাসন বিষয়ে ‘ঢাকা ইন্টেগ্রিটি ডায়ালগ ১’  ও ‘ঢাকা ইন্টেগ্রিটি ডায়ালগ ২’ অনুষ্ঠিত হয়।
 
গণমাধ্যম যোগাযোগ
শেখ মনজুর-ই-আলম 
পরিচালক, আউটরিচ অ্যান্ড কমিউনিকেশনং
মোবাইল: ০১৭০৮৪৯৫৩৯৫
ই-মেইল: This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.