• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস ২০১৫ উদযাপন: দুর্নীতি প্রতিরোধ আর সুশাসন প্রতিষ্ঠায় তারুণ্যের আহ্বান

ঢাকা, ৮ ডিসেম্বর ২০১৫আঁধারের বুক চিরে প্রদীপ হাতে সুরের মূর্ছনায় তরুণরা দুর্নীতি প্রতিরোধ আর সুশাসন প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানালো রবীন্দ্র সরোবর মুক্তমঞ্চ থেকে। আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস ২০১৫ উপলক্ষে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) আয়োজিত দুর্নীতিবরোধী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আজ নানা শ্রেণী পেশার মানুষ সমবেত হয়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে দৃঢ় অবস্থান ব্যক্ত করেন ও সরকারকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সক্রিয় হতে আহ্বান জানান।
জাগ্রত বিবেক, দুর্জয় তারুণ্য - দুর্নীতি রুখবেই’ শ্লোগানকে প্রতিপাদ্য করে এ বছর টিআইবি ও টিআইবি’র অনুপ্রেরণায় গঠিত দেশের ৪৫টি এলাকার সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), ইয়ূথ এনগেজমেন্ট অ্যান্ড সাপোর্ট (ইয়েস) গ্রুপ, ইয়েস ফ্রেন্ডস এবং স্বচ্ছতার জন্য নাগরিক (স্বজন) সদস্যগণ দেশব্যাপী নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে এ দিবসটি পালন করছে। দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে আজ ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবর মুক্তমঞ্চে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান এবং পরিচালক ড. রিজওয়ান-উল-আলম।
. ইফতেখারুজ্জামান শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, “আমাদের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম চেতনা ছিল দুর্নীতিমুক্ত ও সুশাসিত বাংলাদেশ। স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত আমাদের অর্জন অনেক তা আরো অনেক বেশী হতে পারতো যদি দুর্নীতি না থাকতো। আমাদের সকল অর্জনের দাবিদার এদেশের জনগণ আর সকল অর্জনে নেতৃত্ব দিয়েছে তরুণরা। আমরা বিশ্বাস করি দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলনকেও সফল করতে পারে তরুণরাই। দুর্নীতি ও অনিয়ম থেকে প্রত্যেকে নিজেকে বিরত রাখলেই এদেশকে দুর্নীতিমুক্ত করা সম্ভব।”
টিআইবি’র অনুপ্রেরণায় ঢাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গঠিত ১৪টি ইয়েস দলের সদস্যগণ অনুষ্ঠানে নাচ, গান ও আবৃত্তি পরিবেশন করেন। এছাড়া জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী রথীন্দ্র নাথ রায়, ‘বাপ্পা মজুমদার এবং সায়ান সঙ্গীত পরিবেশন করেন।
উল্লেখ্য, দুর্নীতিকে বৈশ্বিক সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করে এর নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধে সক্রিয় এবং কার্যকর কর্মপন্থা নির্ণয়ে জাতিসংঘের উদ্যোগে ২০০৩ সালের ৩১ অক্টোবর জাতিসংঘ দুর্নীতিবিরোধী সনদ গৃহীত হয়। একই বছরের ৯ ডিসেম্বর মেক্সিকোর মেরিডায় অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে অংশগ্রহণকারী ১২৯টি দেশের মধ্যে ৮৭টি দেশ জাতিসংঘের দুর্নীতিবিরোধী সনদে স্বাক্ষর করে। স্বাক্ষর প্রদানের দিনটিকে স্মরণীয় রাখতে ও বিশ্বব্যাপী দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলন জোরদার করার লক্ষ্যে জনসচেতনতা তৈরিতে জাতিসংঘের পক্ষ থেকে প্রতি বছর ৯ ডিসেম্বরকে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস হিসেবে পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়।
আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উদ্যাপনের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে সাধারণ জনগণের মধ্যে দুর্নীতিবিরোধী সচেতনতা সৃষ্টি এবং দুর্নীতি প্রতিরোধে এই সনদের ভূমিকা সম্পর্কে অবহিতকরণ। এ লক্ষ্যে ২০০৪ সাল থেকে টিআইবি’র উদ্যোগে ৯ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উদযাপিত হয়ে আসছে।
Media Contact