• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

TIB expresses concern over recommendation to enact indemnity laws for the development of ports (Bangla)

বন্দর উন্নয়নে দায়মুক্তি আইন প্রণয়নের সুপারিশে টিআইবি’র উদ্বেগ
ঢাকা, ১৭ নভেম্বর ২০১৫: তিনটি বন্দরের যন্ত্রপাতি ক্রয়ে বিদ্যমান সরকারি ক্রয় আইনের ব্যত্যয়ের সুযোগ সৃষ্টির জন্য মন্ত্রণালয় ও বন্দর কর্তৃপক্ষকে দায়মুক্তি প্রদানযোগ্য আইন প্রণয়নে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সুপারিশে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)
এক বিবৃতিতে টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “গণমাধ্যম ও অন্যান্য নির্ভরযোগ্য সূত্রে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী চট্টগ্রাম, মংলা ও পায়রা বন্দর উন্নয়নে যন্ত্রপাতি ক্রয়ে সম্প্রতি নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি দায়মুক্তির যে সুপারিশ করেছে তাতে টিআইবি উদ্বিগ্ন, কারণ এর ফলে মন্ত্রণালয় ও বন্দর কর্তৃপক্ষের ক্রয় খাতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা গুরুতর প্রশ্নের সম্মুখীন হবে। ‘বিদ্যমান আইনে কাজ করতে গেলে নানা প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়’ বা ‘কাজ দ্রুত সম্পাদনে দায়মুক্তি আইন প্রণয়ন করা প্রয়োজন’ এ ধরনের বিভিন্ন যুক্তি সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত আইন ২০০৯ এবং সংশ্লিষ্ট বিধি লঙ্ঘনকে বৈধতা প্রদানের নামান্তর। এতে সরকারি ক্রয়ে স্বচ্ছতা, সুস্থ প্রতিযোগিতা, গুণগত মান ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতের পরিবর্তে যোগসাজশ, দলীয় প্রভাব, অনিয়ম ও দুর্নীতির ঝুঁকি প্রকট আকার ধারণ করতে পারে। অতএব প্রস্তাবিত দায়মুক্তি আইন প্রণয়ন থেকে বিরত থাকতে জাতীয় সংসদ ও সরকারের প্রতি আহ্বান জানাই।”
উল্লেখ্য, নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের একটি দল বিশ্বের ৬টি উন্নতমানের বন্দর পরিদর্শনের লক্ষ্যে তিনটি দেশ সফর করবেন মর্মে একটি সরকারি প্রজ্ঞাপন গত মাসে জারি করা হয়েছে। এ প্রেক্ষিতে যেসব দেশে উন্নতমানের বন্দর রয়েছে সেখানে বন্দর উন্নয়নে ক্রয় সংক্রান্ত কোন দায়মুক্তি আইনের অস্তিত্ব আছে কিনা; থাকলে সেক্ষেত্রে কী পদ্ধতিতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা হয় তা যাচাই করার জন্য টিআইবি আহ্বান জানায়।
Media Contact