• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

TIB members call for effective steps for good governance (Bangla)

টিআইবি’র সদস্যদের বার্ষিক সভা:
সুশাসন প্রতিষ্ঠায় কার্যকর পদক্ষেপের আহ্বান
ঢাকা, বুধবার, ২৫ জুন ২০১৪: গত ২১ শে জুন রাজধানীর হোটেল অবকাশে অনুষ্ঠিত বার্ষিক সভায় টিআইবি’র সদস্যরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশ গঠন, জাতীয় সংসদকে কার্যকর, স্থিতিশীল রাজনৈতিক ব্যবস্থা ও গণতান্ত্রিক পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে রাজনৈতিক সদিচ্ছা, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, দুর্নীতি প্রতিরোধে দুর্নীতি দমন কমিশনের কার্যকর ভূমিকা এবং মানবাধিকার সংরক্ষণে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণে সরকারের কাছে জোরালো দাবি জানিয়েছেন।
সভায় টিআইবি সদস্যগণ সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও দুর্নীতি প্রতিরোধে রাজনৈতিক অঙ্গীকার, প্রাতিষ্ঠানিক উদ্যোগ এবং সামাজিক আন্দোলন বেগবান করতে সরকারের প্রতি জাতীয় শুদ্ধাচার বাস্তবায়নে কার্যকর পথরেখা প্রণয়ন ও তা বাস্তবায়নের দাবি জানান। একইসাথে মন্ত্রিপরিষদ সচিবালয়ের অধীন জাতীয় শুদ্ধাচার বাস্তবায়ন ইউনিটের ক্ষমতা, সম্পদ ও দক্ষতা বৃদ্ধিসহ কৌশলপত্রের আওতাভুক্ত সকল প্রতিষ্ঠানে শুদ্ধাচারের জন্য সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের দিকনির্দেশনা ও অর্থায়নের আহ্বান জানানো হয়।
অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টিআইবি’র ট্রাস্টি ড. এটিএম শামসুল হুদা। এতে সভাপতিত্ব করেন টিআইবি’র ট্রাস্টি বোর্ডের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য ডা. মো. নুরুদ্দিন এবং সঞ্চালনা করেন টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।
. এটিএম শামসুল হুদা তাঁর বক্তব্যে বলেন “গবেষণার মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক দুর্বলতা চিহ্নিত করে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দুর্নীতি হ্রাস করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে টিআইবি।”
উল্লেখ্য, বাংলাদেশে দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলনের কার্যক্রমে জনম্পৃক্ততা বৃদ্ধিতে আগ্রহী শিক্ষার্থী, বিভিন্ন পেশাজীবী ও সাধারণ নাগরিককে টিআইবি সদস্যভুক্ত করে আসছে। বার্ষিক সদস্য সভা ছাড়াও ত্রৈমাসিক সদস্য দিবসে অংশগ্রহণ করে তারা টিআইবি’র কর্মসূচি সম্পর্কে মূল্যবান পরামর্শ প্রদান করেন। বর্তমানে টিআইবি’র সদস্য সংখ্যা ৩৪৭ জন।
বার্ষিক সভা শেষে গৃহীত এক ঘোষণাপত্রে অপহরণ, গুম ও খুনের ঘটনার যথাযথ প্রক্রিয়ায় বিচার সম্পন্ন; পদ্মা সেতু নির্মাণে স্বচ্ছতা ও জাতীয় সম্পদ ব্যবহারে জবাবদিহিতা; আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা এবং মানবাধিকার ও শ্রমিক অধিকার; বিনিয়োগের নিরাপত্তা প্রদান; কালো টাকা বৈধকরণের সুযোগ বাতিল; নারীর ক্ষমতায়ন প্রক্রিয়া; ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণ; এবং বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিশ্চিতকরণের জোর দাবি জানানো হয়।

Media Contact