• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

TIB recommends for updated rules for management of cooperatives

সমবায় সমিতি ব্যবস্থাপনায় যুগোপযোগী সমবায় বিধিমালা প্রণয়নের সুপারিশ টিআইবি’র
দুর্নীতি প্রতিরোধ এবং স্বচ্ছতা প্রতিষ্ঠার ওপর গুরুত্বারোপ
ঢাকা, ১৫ এপ্রিল ২০১৪: একটি যুগোপযোগী সমবায় বিধিমালা প্রণয়নের মাধ্যমে দেশের সমবায় সমিতিগুলোর কার্যক্রম কার্যকর ও স্বচ্ছতার সাথে পরিচালনা নিশ্চিতকরণে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। টিআইবি পরিচালিত ‘সমবায় সমিতি ব্যবস্থাপনা: সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় ’ শীর্ষক এক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আজ এই সুপারিশ করা হয়। এতে মূল প্রতিবেদনের সারাংশ উপস্থাপন করেন টিআইবি’র গবেষণা ও পলিসি বিভাগের ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার মোহাম্মদ হোসেন ও নিহার রঞ্জন রায়। আরো উপস্থিত ছিলেন টিআইবি ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারপারসন অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল, নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান, উপ-নির্বাহী পরিচালক ড. সুমাইয়া খায়ের এবং গবেষণা ও পলিসি বিভাগের পরিচালক রফিকুল হাসান।
প্রতিবেদন প্রণয়নে সমিতির ধরন, স্তর, তদারকি সংস্থা ও ভৌগোলিক বিন্যাস এই চারটি সূচকের ওপর ভিত্তি করে ৬টি বিভাগের ৮টি জেলার ১১টি উপজেলার মোট ৩৭টি সমবায় সমিতি থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী সরকার কর্তৃক বিভিন্ন সময়ে গৃহীত ইতিবাচক পদক্ষেপ সমুহের মধ্যে রয়েছে- () সমবায় সমিতি (সংশোধন) আইন ২০১৩ প্রণয়ন () প্রতি মাসে সমিতি পরিদর্শন বাধ্যতামূলক করা () সমবায়ীদের প্রশিক্ষণ ভাতা বৃদ্ধি () সমিতি নিবন্ধনে মাঠ পর্যায়ে যাচাই () দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ () বহুমুখী সমিতি নিবন্ধন প্রদানে কঠোরতা এবং () দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত একটি সমবায় সমিতির ক্ষতিগ্রস্তদের স্বার্থ রক্ষায় এডহক কমিটি গঠন উল্লেখযোগ্য।
উল্লিখিত ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া সত্ত্বেও প্রায়োগিক পর্যায়ে নানা সীমাবদ্ধতার কারণে সমবায় সমিতিসমূহ কাঙ্ক্ষিত সাফল্য অর্জন করতে পারেনি। প্রতিবেদন অনুযায়ী সমবায় খাতের এই ব্যর্থতার মূলে রয়েছে সমবায় সমিতির নিবন্ধন, পর্যবেক্ষণ, তদারকি, পরিচর্যা, নিরীক্ষা, প্রণোদনা এবং উৎসাহ প্রদানে নিয়ন্ত্রক ও তত্ত্বাবধানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর কাঠামোগত দুর্বলতা, অনিয়ম ও দুর্নীতি এবং অন্যদিকে সমবায় সমিতিগুলোর অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা, অনিয়ম ও দুর্নীতি। বিআইডিএস পরিচালিত এক গবেষণার উল্লেখ করে প্রতিবেদনে বলা হয়, নিবন্ধিত সমবায় সমিতির ৪৭ শতাংশ অকার্যকর হয়ে গেছে। এছাড়া ২১টি বহুমুখী এবং সঞ্চয় ও ঋণদান সমিতি কর্তৃক আনুমানিক ৯ লক্ষ সদস্য ও গ্রাহকের বিনিয়োগকৃত প্রায় ৯,০৭০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এবং রাজনৈতিক বা প্রভাবশালীদের নির্দেশে সমিতির নিবন্ধন এবং প্রাথমিক সমবায় সমিতি নিবন্ধনের ক্ষেত্রে ৮,০০০ থেকে ১০,০০০ টাকা নিয়ম-বহির্ভূতভাবে আদায় করা হয়। আবার কর্মএলাকা ভেদে এই অর্থের পরিমান ৩৫,০০০ থেকে ৮০,০০০ টাকা পর্যন্ত।
সংবিধানে সমবায়ের উল্লেখ রয়েছে মন্তব্য করে দেশের মালিকানার ওপর জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সুশাসিত সমবায় ব্যবস্থাপনার ওপর গুরুত্বারোপ করেন সুলতানা কামাল। তিনি বলেন “কার্যকর নিরীক্ষার মাধ্যমে সমবায় সমিতিগুলোকে জবাবদিহিতার আওতায় এনে জন-প্রত্যাশার যথাযথ প্রতিফলন ঘটাতে হবে।”
প্রতিবেদন অনুযায়ী অন্যান্য উল্লেখযোগ্য অনিয়মগুলোর মধ্যে রয়েছে: নিবন্ধনের শর্তাবলী মাঠ পর্যায়ে যাচাই না করেই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুরোধে/নির্দেশে সমবায় সমিতির নিবন্ধন দেওয়া; যথাযথভাবে নিরীক্ষা সম্পাদন না করা এবং সমবায় সমিতির সাথে আর্থিক চুক্তিতে সমিতির হিসাব প্রস্তুত করে দেওয়া; বিতরণকৃত ঋণের বিপরীতে আইন বহির্ভূতভাবে ৩০ থেকে ৪৫ শতাংশ হারে সুদ আদায়; নিরীক্ষার সময় প্রকৃত লাভ গোপন; রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সমিতি গঠন; এবং সমিতিকে আয়কর ফাঁকি দিয়ে কালো টাকা বিনিয়োগের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার উল্লেখযোগ্য।
সংবাদ সম্মেলনে সমবায় সমিতি ব্যবস্থাপনায় সুশাসন নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে সমবায় সমিতি আইন ও বিধিমালা, নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে সমবায় সমিতি নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান সমবায় অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ রুরাল ডেভেলপমেন্ট বোর্ড (বিআরডিবি) এর মধ্যে সমন্বয় সংক্রান্ত ২২ দফা সুপারিশ করা হয়। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল: ‘সমবায় সমিতি (সংশোধন) আইন ২০১৩’ এর আলোকে সমবায় সমিতি বিধিমালা সংশোধন ও একটি যুগোপযোগী ‘সমবায় নীতিমালা’ প্রণয়ন; রাষ্ট্রীয় বাজেটে সমবায় সেক্টরের জন্য বাস্তব চাহিদা অনুযায়ী অর্থের সংস্থান এবং কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংকগুলোকে পুনঃতফসিলিকরণের মাধ্যমে সচল করা; সমবায় সমিতির নিবন্ধন প্রদানের পূর্বে মাঠ পর্যায়ে সমিতির যোগ্যতা যাচাইপূর্বক প্রাক-নিবন্ধন নিরীক্ষা প্রক্রিয়া সম্পাদন; এবং সমবায় সমিতির নিবন্ধন, প্রশিক্ষণ, উন্নয়ন, নিরীক্ষা, পরিবীক্ষণ ইত্যাদি কাজকে সহজতর ও গতিশীল করার জন্য সমবায় অধিদপ্তর ও বিআরডিবি’র মধ্যে কার্যকর সমন্বয় সাধন ইত্যাদি।

Media Contact