• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

Parliamentary-styled Anti-Corruption debate competition begins (Bangla)

নারীর সমতাভিত্তিক উন্নয়নে চাই সুশাসন ও কার্যকর দুর্নীতি প্রতিরোধ
দুই দিনব্যাপী দুর্নীতিবিরোধী ছায়া সংসদ বিতর্ক প্রতিযোগিতা শুরু
ঢাকা, মার্চ ১৫, ২০১৪: আন্তর্জাতিক নারী দিবস ২০১ উপলক্ষে “নারীর সমতাভিত্তিক উন্নয়নে চাই সুশাসন ও কার্যকর দুর্নীতি প্রতিরোধ” প্রতিপাদ্যে আয়োজিত দুই দিনব্যাপী দুর্নীতিবিরোধী ছায়া সংসদ বিতর্ক প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নারীর প্রতি সহিংসতা ও দুর্নীতি প্রতিরোধে প্রচলিত আইনের কার্যকর ও দ্রুত প্রয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন বক্তারা। আজ রাজধানীর বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এর মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, এমপি। অনুষ্ঠানে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও টিআইবি’র বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর সদস্য রোকেয়া আফজাল রহমান বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সভাপতিত্ব ও সঞ্চালনা করেন টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। প্রতিযোগিতায় সারাদেশের উচ্চ মাধ্যমিক থেকে স্নাতকোত্তর পর্যায়ের ১৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ১৫০ জন বিতার্কিক অংশগ্রহণ করছে। 
দুই দিনব্যাপী বিতর্ক প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, এমপি বলেন, “এ ধরনের একটি বিষয়কে প্রতিপাদ্য করে বির্তকের আয়োজন সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে এবং আমি মনে করি এ ধরনের কার্যক্রম তরুণদের মাঝে দুর্নীতিবিরোধী সচেতনতা বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে। এদেশের জনসংখ্যার এক বৃহৎ অংশ নারী। নারীর সমতাভিত্তিক উন্নয়ন হলেই কেবল জাতীয় উন্নয়ন সম্ভব। নারীদের উন্নয়নে সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচির উল্লেখ করে তিনি নারীদের লজ্জা-ভয় অতিক্রম করে সাহসিকতার সাথে সকল ধরনের বাধা মোকাবেলার আহ্বান জানান।” 
রোকেয়া আফজাল রহমান নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, “অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে নারীর সক্রিয় অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার মাধ্যমে নারীর কার্যকর ক্ষমতায়নসহ সামাজিক ও পারিবারিক মর্যাদা বৃদ্ধি করা সম্ভব। একইসাথে শিক্ষায় নারীর সম-অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।”     
সভাপতির বক্তব্যে ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রায় আমাদের প্রধান বাধা দুর্নীতি। আর এই দুর্নীতির কারনে সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হয় নারী। যেসকল দেশ সুশাসন নিশ্চিত করতে পেরেছে তারা নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে পেরেছে, ভারসাম্য রক্ষা করতে পেরেছে। তাই নারী-পুরুষের ক্ষমতার ভারসাম্যের মাধ্যমে দেশের উন্নয়নের ধারা নিশ্চিত করতে হবে।”
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে টিআইবি’র পক্ষ থেকে একটি অবস্থানপত্র উপস্থাপন করেন কাজী শফিকুর রহমান, প্রোগ্রাম ম্যানেজার-জেন্ডার, টিআইবি। ১১ দফা দাবি সম্বলিত এই অবস্থানপত্রে উল্লেখযোগ্য দাবিগুলো হল: রাজনৈতিক ও রাষ্ট্রকাঠামোসহ আর্থসামাজিক ও জনজীবনের সকল পর্যায়ে নারীর সক্রিয় অংশগ্রহণের সুযোগ সম্প্রসারণ করতে হবে; নারীর প্রতি সকল প্রকার বৈষম্য বিলোপকারী সনদ (সিডও)-এর সংরক্ষিত ধারা-২ এবং ১৬(১)(সি) এর সঠিক বাস্তবায়ন; নারী-নির্যাতন প্রতিরোধে বিদ্যমান সকল আইনের কার্যকর প্রয়োগ নিশ্চিতকরণ; জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতিমালা-২০১১ এর পূর্ণ বাস্তবায়ন; ’গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ (সংশোধন) আইন ২০০৯’ অনুযায়ী রাজনৈতিক দলগুলোকে নারী প্রার্থী মনোনয়ন; নারী-পুরুষের সমান মজুরী, নারী শ্রমিকের অনুকূল কর্মপরিবেশ, নির্দিষ্ট শ্রমঘণ্টা ও ন্যায্য ছুটি নিশ্চিতকরণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ; এবং নারীর সামাজিক নিরাপত্তা ও অধিকার নিশ্চিতকরণে গণ সচেতনতা সৃষ্টি ও সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা। 
উল্লেখ্য, আগামীকাল ১৬ মার্চ, রবিবার, বিকেল ৫টায় একই স্থানে বিতর্ক প্রতিযোগিতার সমাপনী পর্ব অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক ও টিআইবি বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর মহাসচিব সেলিনা হোসেন।

Media Contact