• header_en
  • header_bn

উপাত্ত সুরক্ষা আইন, ২০২২ (খসড়া) পর্যালোচনা ও সুপারিশ

যথাযথ আইনগত কাঠামোর অধীনে ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষার জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশ অনেক আগে থেকেই নানান ধরনের উদ্যোগ এবং পদক্ষেপ নিয়েছে। জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়ন বিষয়ক সংস্থা (আঙ্কটাড) এর সর্বশেষ তথ্য অনুসারে বিশ্বের ১৯২ দেশের মধ্যে ১৩৭টি দেশে ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষা বা তথ্যের গোপনীয়তা সম্পর্কে দেশীয় আইন রয়েছে। আঙ্কটাড- এর তথ্য মতে, বাংলাদেশ এ সম্পর্কিত কোনো আইন নেই তাই, বর্তমানের এই ইন্টারনেটভিত্তিক আমাদের জীবন ব্যবস্থায় যেখানে ব্যক্তিগত তথ্যকে বলা হয় ইন্টারনেটের জ্বালানি বা মুদ্রা সেখানে ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষার ব্যাপারটির গুরুত্ব অনুধাবন করে এ সম্পর্কিত একটি আইন তৈরি করার উদ্যোগ নেওয়া অবশ্যই একটি প্রশংসনীয় প্রয়াস।  

 

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) অনেক আগ্রহ নিয়ে নতুন খসড়াটি পর্যালোচনা করার পরে বেশকিছু সীমাবদ্ধতা চিহ্নিত করেছে। উল্লেখযোগ্য সীমাবদ্ধতাগুলোকে- (ক) আইনের খসড়ার সীমাবদ্ধতা এবং (খ) খসড়া বিলের আলোকে আইনটি প্রণীত হলে তা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে উদ্বেগ; এই দুই ভাগে আলোচনা করা হয়েছে--- 

 

বিস্তারিত জানতে নিচে ক্লিক করুন -

মূল প্রতিবেদন (বাংলা) 

সার-সংক্ষেপ (বাংলা) 

উপস্থাপনা