• header_en
  • header_bn

সনাক, চাঁদপুরের সদস্য ও প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক প্রফেসর মনোহর আলী’র মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) এর অনুপ্রেরণায় গঠিত সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), চাঁদপুরের সদস্য ও প্রতিষ্ঠাকালীন আহ্বায়ক প্রফেসর মনোহর আলী’র (জন্ম: ১৩ নভেম্বর ১৯৪৭ইং) মৃত্যুতে টিআইবি পরিবার গভীরভাবে শোকাহত। ১৮ মে ২০২০ দুপুরে ঢাকাস্থ বাসভবনে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মনোহর আলী কিছুদিন যাবৎ ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিলেন। ২০০৫ সালের ডিসেম্বরে সনাক, চাঁদপুরের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সম্পৃক্ত হয়ে তিনি স্থানীয় পর্যায়ে দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলন পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন।
বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সাহিত্যিক প্রফেসর মনোহর আলী মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত সনাক, চাঁদপুরের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি ১৯৭০ সাল থেকে দেশের বিভিন্ন সরকারি কলেজে শিক্ষকতা করেন এবং অধ্যক্ষ হিসেবে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। চাকুরি জীবনে তিনি ছিলেন অত্যন্ত জনপ্রিয় একজন শিক্ষক। মনোহর আলী ২০০২ সালে সাতক্ষীরা জেলার এবং ২০০৪ সালে চাঁদপুর জেলার শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ হিসেবে পুরস্কৃত হন। এছাড়াও তিনি চাঁদপুর পরিবেশ আন্দোলনের সভাপতি, চাঁদপুর ডায়াবেটিস সমিতির আজীবন সদস্য, চাঁদপুর অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক কল্যাণ সমিতির সদস্য, চাঁদপুর বাংলা ভাষা ও সাহিত্য পরিষদের সদস্য, চাঁদপুর সাহিত্য একাডেমীর সদস্য, চাঁদপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সদস্য, চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক ফাউন্ডেশন ও চাঁদপুর সাহিত্য মঞ্চের উপদেষ্টাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত ছিলেন। প্রফেসর মনোহর আলী মৃত্যুকালে স্ত্রী, পাঁচ ছেলে ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলনে প্রফেসর মনোহর আলী’র অবদান আমাদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করবে। টিআইবি’র সাধারণ পর্ষদ, ট্রাস্টি বোর্ড, সকল কর্মী, দেশের ৪৫টি এলাকার সনাক, স্বজন, ইয়েস, ইয়েস ফ্রেন্ডস, ঢাকা ইয়েস, ওয়াইপ্যাক-এর সদস্যসহ সকলের পক্ষ থেকে আমরা তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।