• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

সনাক, চাঁদপুরের সভাপতি কামরুজ্জামান চৌধুরীর মৃত্যুতে টিআইবি’র শোক প্রকাশ

ঢাকা, সোমবার, ৩১ মার্চ ২০১৪: ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)-এর অনুপ্রেরণায় গঠিত সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), চাঁদপুরের সভাপতি আলহাজ্ব কামরুজ্জামান চৌধুরী (১৬ জুন ১৯৩৯ -৩০ মার্চ ২০১৪) এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে টিআইবি। এক বিবৃতিতে টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “আলহাজ্ব কামরুজ্জামান চৌধুরীর মৃত্যুতে টিআইবি’র ট্রাস্টি বোর্ড ও উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যবৃন্দ, সারা দেশের ৪৫টি এলাকার সনাক, স্বজন, ইয়েস সদস্য ও ইয়েস ফ্রেন্ডস, চারটি অঞ্চলে গঠিত ওয়াইপ্যাক (ইয়াং প্রফেশনালস এগেইনস্ট করাপশন) এবং টিআইবি’র কর্মীসহ সকলে ব্যথিত। তাঁর মৃত্যুতে টিআইবি পরিবার দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলনের একজন পথিকৃত ও সক্রিয় সহযোদ্ধাকে হারালো। আমরা তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।”
তিনি আরও বলেন, “টিআইবি’র অনুপ্রেরণায় ২০০৫ এ চাঁদপুরে সনাক গঠন থেকে শুরু করে সনাক-এর মাধ্যমে স্থানীয় পর্যায়ে দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলন পরিচালনায় তাঁর অবদান, দুরদৃষ্টিসম্পন্ন পরামর্শ, ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও আন্তরিক সহযোগিতাকে আমরা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি। সনাক চাঁদপুরের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সদস্য এবং পরবর্তীতে ১৫ মে ২০১১ থেকে সভাপতি হিসেবে তার সক্রিয় অংশগ্রহণ, বলিষ্ঠ নেতৃত্বও টিআইবি শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছে।”
উল্লেখ্য, আলহাজ্ব কামরুজ্জামান চৌধুরী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও বিপিএড ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি তাঁর বর্ণাঢ্য পেশাগত ও সামাজিক জীবনে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৬২ থেকে ১৯৭৭ সালের ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত তিনি চাঁদপুর সরকারি কলেজে শরীর চর্চা শিক্ষক এবং ৩১ জানুয়ারি ১৯৭৭ হতে ১১ জুন ১৯৯৭ পর্যন্ত কুমিল্লা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডে স্পোর্টস অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ১৯৬৭ সাল হতে বাংলাদেশ অবজারভার পত্রিকা প্রকাশনার শেষ অবধি চাঁদপুর জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছেন। এছাড়াও তিনি ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি সান পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি ছিলেন। আলহাজ্ব কামরুজ্জামান চৌধুরী ১৯৬৮ হতে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি, চাঁদপুর শাখার সম্পাদক, ১৯৭২-২০০১ সাল পর্যন্ত চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি এবং ১৯৭৭-১৯৮৫ সাল পর্যন্ত কুমিল্লা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এছাড়াও তিনি চাঁদপুর রোটারী ক্লাবের চার্টার সদস্য, চাঁদপুর রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট ও চাঁদপুর ডায়াবেটিক সমিতির আজীবন সদস্য ও চাঁদপুর ফাউন্ডেশনের সম্পাদক ছিলেন। তিনি সাংবাদিক এবং ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে বিভিন্ন পুরস্কারে ভূষিত হন। তিনি বিভিন্ন সময়ে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন, বাংলাদেশ ভলিবল ফেডারেশন, বাংলাদেশ বাস্কেটবল ফেডারেশন ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সদস্য ছিলেন।
আলহাজ্ব কামরুজ্জামান চৌধুরী ছিলেন একাধারে একজন সাংবাদিক, ক্রীড়া সংগঠক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, সমাজসেবী, নারী অধিকার ও দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলনের অগ্রণী কর্মী। দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলনে তাঁর অবদান আমাদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করবে। এই সামাজিক আন্দোলনে তাঁর সক্রিয় অংশগ্রহণ, দূরদৃষ্টিসম্পন্ন পরামর্শ ও আন্তরিক সহযোগিতা টিআইবি শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছে।