• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 
  • Seminar Paper/Concept Paper

    • World Environment Day 2016 Concept Note (Bangla)

      বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০১৬  “বন্যপ্রাণী ও পরিবেশ, বাঁচায় প্রকৃতি বাঁচায় দেশ” জীবন ও জীবিকার জন্য সবুজ পরিবেশ ও পরিবেশ-বান্ধব ধরিত্রীর প্রয়োজনীয়তা এবং জীবজগৎ ও প্রকৃতির সুরক্ষায় জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৯৭৩ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী প্রতিবছর ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। প্রতি বছরের ন্যায় বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০১৬ এর প্রতিপাদ্য হলো “বন্যপ্রাণী ও পরিবেশ, বাঁচায় প্রকৃতি বাঁচায় দেশ”। এর লক্ষ্য হলো ধরিত্রীর পরিবেশ, প্রতিবেশ এবং জীববৈচিত্র্য, বন ও বন্য প্রাণীকে সুরক্ষার মাধ্যমে বাসযোগ্য বিশ্ব গড়তে মানুষকে ব্যাপকভাবে সচেতন করা। উল্লেখ্য, ২০৩০ টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার অন্যতম লক্ষ্য হলো, পরিবেশ ও প্রতিবেশ রক্ষার মাধ্যমে বিশ্বকে বাসযোগ্য হিসাবে গড়ে তোলা। সুনির্দিষ্টভাবে লক্ষ্য ১৫ এর মাধ্যমে জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ, বন উজাড় রোধ করার মাধ্যমে মরুকরণ রোধ এবং ভূমি ক্ষয় হ্রাসে জোর প্রদান করা হয়েছে। পুরো ধারণাপত্রের জন্য এখানে ক্লিক করুন ।

    • বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস ২০১৬-এর ধারণাপত্র

      প্রতি বছর ৭ এপ্রিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে পালিত হয় বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস। এ বছর বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস এর প্রতিপাদ্য ‘ডায়াবেটিস প্রতিরোধ’ (Beat Diabetes)। প্রতিবারের মতো এবারও বাংলাদেশ সরকার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাথে একাত্মতা পোষণ করে ৭ এপ্রিল, বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস ২০১৬ উদযাপন করছে। এবারের স্বাস্থ্য দিবসে পরিস্থিতি ও ভয়াবহতা বিবেচনায় ডায়াবেটিস ও এ সংক্রান্ত স্বাস্থ্য জটিলতা ও এর ফলাফল, প্রতিরোধ এবং এ বিষয়ক নজরদারি বৃদ্ধির বিষয় গুরুত্বসহকারে তুলে ধরা হয়েছে। এ দিবসের মধ্য দিয়ে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে পরিমিত খাদ্য গ্রহণ, সাধ্যমত কায়িক শ্রম ও ব্যায়াম, ওষুধ এবং এ বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরির পাশাপাশি জীবনযাপনে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে সুনির্দিষ্ট ও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আহবান জানানো হয়েছে। ধারণাপত্র এখানে

    • Concept paper on the International Youth Day 2014 (Bangla)

      তরুণ সমাজ সব সময়ই যে কোন দেশের সর্বাপেক্ষা বলিষ্ঠ, আত্মপ্রত্যয়ী, সৃজনশীল ও যৌবনের উদ্দীপনা, সাহসিকতা, দুর্বার গতি, নতুন জীবন রচনার স্বপ্ন এবং কল্যাণব্রতী জনগোষ্ঠী। অফুরন্ত চালিকাশক্তিতে তরুণরাই পারে সকল বাধা বিপত্তির মোকাবেলা করতে। বাংলাদেশের তরুণদের রয়েছে সমৃদ্ধ ইতিহাস। বৃটিশবিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে বায়ান্ন এর ভাষা আন্দোলন, উনসত্তরের গণঅভ্যূত্থান, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ, নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে এদেশের তরুণসমাজ। তরুণ প্রজন্মের মানসিক স্বাস্থ্যের পরিপূর্ণ বিকাশের জন্য পরিবার, সমাজ তথা সরকারকে সমন্বিত উদ্যোগ নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। এখানে ক্লিক করুন

    • World Health Day 14 Concept Note (Bangla)

      বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তন, শিল্পায়ন ও শহরায়নের ফলে মূলত গ্রীষ্ম প্রধান ও ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানি এবং স্বাস্থ্যকর পয়:নিষ্কাষণ ব্যবস্থাপনার দুর্বলতার ফলে সংক্রামক ব্যাধিসমূহ বিস্তার লাভ করছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ি বিশ্বের সংক্রামক ব্যাধির ১৭ শতাংশই বিভিন্ন কীট-পতঙ্গ যেমন- মশা, মাছি, ছারপোকা, শামুক ও অন্যান্যর জন্য দায়ী। পুরো ধারণাপত্রের জন্য এখানে ক্লিক করুন।

    • UNCAC - Government-Civil Society engagement

      Opportunities and Challenges in

      Government-Civil Society Engagement for

      UNCAC Implementation:

      Lessons from Bangladesh

      Click here for the full presentation

      Mexico City, 27 October 2013

    • গোলটেবিল বৈঠক: সংসদ সদস্যদের আচরণবিধি আইনের প্রয়োজনীয়তা

      জনগনের প্রতিনিধি হিসেবে মাননীয় সংসদ সদস্যদের অবস্থান মর্যাদাপূর্ণ। জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় এবং দেশের উন্নয়নে সংসদ সদস্যদের দায়িত্ব ও কর্তব্য অপরিসীম। সংসদ সদস্যদের দায়িত্ব ও কর্তব্যের পাশাপাশি জনগণের নিকট জবাবদিহিতার বাধ্যবাধকতা থাকলে সংসদ সদস্যদের সম্মান ও মর্যাদা বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু ইতিহাস থেকে দেখা গেছে, স্বাধীনতার পর থেকেই দেশের কিছু গণপরিষদ সদস্যের আচরণ নিয়ে নানা প্রশ্ন ওঠে। কারো কারো বিরুদ্ধে হানাদার পাকিস্তানীদের সঙ্গে আঁতাত, ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ ওঠে। সে সময় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়দার লক্ষ্যে রাষ্ট্রপতির পক্ষ থেকে ১৯৭২ সালের ২৩ মার্চ গণপরিষদের সদস্যপদ বাতিল সংক্রান্ত একটি নির্দেশ জারি করা হয়। ওই নির্দেশের আলোকে ৬ এপ্রিল ১৯৭২ তারিখে ১৬ জন সদস্যকে দুর্নীতির অভিযোগে গণপরিষদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। পরবর্তীতে ২২ সেপ্টেম্বর আরও ১৯ জনের গণপরিষদ সদস্যপদ খারিজ করা হয়। দুর্ভাগ্যবশত পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে অনেক সংসদ সদস্যদের নৈতিকতার মান নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। তারা বিভিন্ন ধরনের কর্মকাণ্ডে যুক্ত হন যা সংষসদ সদস্য হিসেবে তাঁদের পদমর্যাদা এবং অধিকারের সাথে সাংঘর্ষিক।

      ...

    • Presentation on RTK day 2012

      Click here

    • NGOs in Bangladesh: A natural ally of the Government in promoting democracy

      NGOs in Bangladesh: A Natural ally of the Government inpromotingdemocracy

      Executive Director, Transparency International Bangladesh (TIB) delivered this Speech at the inaugural session of the day-long conference organized by the INGO Forum Bangladesh to celibrate the 40th Anniversary of Bangladesh’s independence, held in BICC, Dhaka, November 24, 2011.

      Click here

       

    • TIB observes Global Earth Day Concept Paper

      বিশ্ব ধরিত্রী দিবস ২০১১

      ভুমি ও পানিসম্পদ ব্যবহারে চাই স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা

      চাই টেকসই জীববৈচিত্র্য, রক্ষা কর জীবন ও জীবিকা

      ১৯৬৯ সালে স্যান ফ্রান্সিসকোতে অনুষ্ঠিত UNESCO সম্মেলনে প্রথম বিশ্ব ধরিত্রী দিবসের ধারণা উত্থাপিত হয়  এবং সবাইকে পৃথিবীর প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষায় সচেতনতা ও মূল্যবোধ গড়ে তোলার ডাক দেয়া হয় । বিশ্ব ধরিত্রী দিবস জীববৈচিত্র্য রক্ষাসহ সকল মানুষের জীবনমানের টেকসই উন্নয়ন এবং বিশ্বে সকল প্রকার ক্ষমতার অপব্যবহার রোধে নাগরিকদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের সুযোগ তৈরি করেছে।

      বনভূমির নির্বিচার নিধন, অনিয়ন্ত্রিত পরিবেশ দূষণকারী শিল্প প্রতিষ্ঠা এবং এগুলো রোধে বিশ্বব্যাপী কার্যকর পদক্ষেপের অভাবে  বিশ্ব ক্রমান্বয়ে উষ্ণ হতে শুরু করে এবং বৈশ্বিক উষ্ণায়ন এবং জলবায়ুর পরিবর্তন পৃথিবীর অস্তিত্বের জন্য অন্যতম হুমকি হয়ে দাঁড়ায়। বিজ্ঞানীদের বারবার সতকর্তা সত্ত্বেও বিশ্ব নেতৃবৃন্দ এ বিষয়ে কর্ণপাত করছিলেন না। অবশেষে বিজ্ঞানীদের বিরতিহীন চাপের ফলে ১৯৮৮ সালে  Inter Governmental Panel For Climate Change (IPCC) এর জন্ম হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯২ সালে    ব্রাজিলের রিও ডি জেনেরিওতে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্ব ধরিত্রী সম্মেলন এবং জন্ম হয় United Nations Framework Convention on Climate Change (UNFCCC) এর।

      ধরিত্রীর অস্তিত্ব্ব, জলবায়ু পরিবর্তন এবং বাংলাদেশ: বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের অন্যতম প্রভাবগুলো হলো সাগর এবং স্থলভাগে বাতাসের ক্রমবর্ধমান গড় তাপমাত্রা বৃদ্ধি, মেরু এবং পাহাড় অঞ্চলে দ্রুত বরফ গলা, সাগরের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি, কৃষি জমি ও সাধু পানির উৎস সমূহতে লবণাক্ত পানির অনুপ্রবেশ এবং ঘন ঘন প্রাকৃতিক দুূর্যোগ। এ পরিবর্তনের জন্য অধিকাংশ ক্ষেত্রে মনুষ্যসৃষ্ট কারণগুলো দায়ী। আর বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাতে সবচেয়ে বিপদগ্রস্ত' দেশগুলোর শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনের এ প্রভাব দৃশ্যমান হওয়ার পাশাপাশি নিম্ন আয় এবং জলবায়ু উদ্বাস্থদের প্রাপ্য সরকারি খাস জমি এবং জলাধার এক শ্রেণীর রাজনীতিবিদ, আমলা, ভূমি ব্যবসায়ীরা দখলের মহোৎসবে নেমেছে। জলবায়ুর পরিবর্তনের ফলে বাংলাদেশে বন্যা, ঘূর্ণিঝড়, খরার মতো প্রাকৃতিক দুূর্যোগের প্রকোপ ভয়াবহভাবে বৃদ্ধি

      ...

    • Integrity in Humanitarian Assistance

      Click here for full Seminar Paper

    << < 1 2 > >> (2)