• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

Policy Brief by year


  • Policy Brief

    • Policy brief on Recruitment of Lecturers in Public Universities: Governance Challenges and Ways Forward

      সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে সচ্ছতা ও জবাবদিহিতা তথা সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সহায়ক ভূমিকা পালনের লক্ষ্যে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) ‘সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক নিয়োগ: সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক একটি গবেষণা কার্যক্রম সম্পন্ন করে। ২০১৬ সালের ১৮ ডিসেম্বর প্রকাশিত উক্ত গর্বেষণায় প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বিবেচনার জন্য এই পলিসি ব্রিফটি উপস্থাপন করা হল। পলিসি ব্রিফের জন্য এখানে ক্লিক করুন।  

    • Policy brief on Private University: Governance Challenges and Way Forward

      দেশের বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ পরিচালনায় অনিয়ম ও দুর্নীতি সম্পর্কে দীর্ঘদিন ধরে পত্র-পত্রিকাসহ গণমাধ্যমে অনেক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে, কিন্তু বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের সুশাসনের চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে কাঠামোবদ্ধ গবেষণার অভাব ছিলো। এই প্রেক্ষিতে টিআইবি “বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়: সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়” শীর্ষক একটি গবেষণা পরিচালনা করে যা ৩০ জুন, ২০১৪ সালে একটি সাংবাদিক সম্মেলনের মধ্য দিয়ে প্রকাশ করা হয় । গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফল বিশ্লেষণ করে টিআইবি একটি সুপারিশমালা প্রদান করে এবং বিভিন্ন সময় এ বিষয়ে এডভোকেসি কার্যক্রম পরিচালনা করে। পরবর্তীতে ধারাবাহিক পর্যবেক্ষণে দেখা যায় যে দেশের বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে যেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আইনি সংস্কার; অননুমোদিত প্রোগ্রাম/কোর্সে শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ করার নির্দেশ; সকল আউটার ক্যম্পাস বন্ধ করার নির্দেশ; দীর্ঘসূত্রতা নিরসনে সব মামলা একই বেঞ্চে আনার উদ্যোগ; অনুমোদন প্রাপ্তির ৫ বছর অতিক্রান্ত সকল বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়কে স্থায়ী ক্যাম্পাসে যাওয়ার জন্য...

    • পলিসি ব্রিফ: হাওরে বাঁধ নির্মাণে সুশাসনের লক্ষ্যে সুপারিশ

      হাওরের সকল অর্থনৈতিক কর্মকান্ড কৃষি নির্ভর। হাওর অঞ্চলের মানুষ প্রধানত বোরো ধানের উপর নির্ভর করে জীবিকা নির্বাহ করে। তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগের (বিশেষ করে পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট অকাল বন্যা) কারণে দরিদ্র জনগণ কোনো কোনো বছর এ ফসল ঘরে তুলতে পারে না। এ ধরনের অকাল বন্যায় যাতে কৃষকের ফসল হানি না হয় তার জন্য সরকার পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) এর মাধ্যমে হাওর এলাকায় ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ও পুরাতন বাঁধ সংস্কার করে থাকে। সুনামগঞ্জ হাওর অঞ্চলের বোরো ফসল রক্ষার্থে ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে সুনামগঞ্জ পাউবো জেলার ১৩১ টি হাওরের জন্য প্রায় ৬৯ কোটি টাকা ব্যয়ে বাঁধ নির্মাণ ও মেরামতের কাজ করে। বাঁধ নির্মাণ ও মেরামতের জন্য টেন্ডার ও পিআইসি (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) পদ্ধতির মাধ্যমে এ প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করা হয়। ২০১৭ সালের মার্চ-এপ্রিল মাসে ভারি বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে হাওরের দুই লাখ ২৩ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমির প্রায় ৮২ শতাংশ থেকে ৯০ শতাংশ বোরো ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়।  গত ২০১৭-১৮ অর্থ বছর থেকে হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণে টেন্ডার পদ্ধতির পরিবর্তে পিআইসি পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়, যা এ বছরও অব্যাহত আছে। ২০১৮-১৯...

    • Policy Brief on Safer Road and Well-governed Road Transportation

      সড়ক পরিবহন খাত দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভিত্তি। এই খাতের শৃঙ্খলা ও জনস্বার্থ নিশ্চিত করা একান্ত প্রয়োজন। ২০০৯ সালে পরিচালিত টিআইবি’র ‘বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন ব্যবস্থায় বিআরটিএ ও স্টেকহোল্ডারদের ভূমিকা: সমস্যা ও প্রতিকারের উপায়’ শীর্ষক গবেষণায় বিআরটিএসহ সড়ক পরিবহন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানসমূহের আইনি ও প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা, শুদ্ধাচার চর্চা ও কার্যকর জবাবদিহিতায় ঘাটতির চিত্র উঠে আসে। নিরাপদ সড়কসহ সড়ক পরিবহন খাতে জবাবদিহি, আইনের শাসন ও ন্যায়বিচারের দাবিতে ২০১৮ সালের জুলাই মাসের শেষ ও আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে শিশু ও তরুণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে সড়ক নিরাপত্তা ও এ খাতে সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ব্যাপক উৎকণ্ঠা ও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে স্থান পায়। এ প্রেক্ষিতে মন্ত্রিসভা ‘সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮’ এর খসড়া অনুমোদন করে এবং পরবর্তীতে তা দ্রুততার সাথে জাতীয় সংসদে পাশ করে গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়। সরকারের এই উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানাই। তবে আইনটিতে যেসব বিষয় অনুপস্থিত বা অস্পষ্ট থেকে গেছে তা সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ-পূর্বক অচিরে একটি বিধিমালা প্রণয়ন করা প্রয়োজন। তবে সুদীর্ঘকাল...

    • Policy Brief on Cooperative Study: Governance Challenges and Way Forward

      দেশব্যাপী দুর্নীতিবিরোধী চাহিদা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও বিষয় নিয়ে গবেষণা ও তার ভিত্তিতে অ্যাডভোকেসি কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। সমসাময়িক বিভিন্ন আলোচিত খাতে সুশাসন টিআইবি’র গবেষণা ও অ্যাডভোকেসি কার্যক্রমের অন্যতম প্রাধান্যের ক্ষেত্র। সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন বিতর্কিত কর্মকা-ের কারণে সমবায় খাত বহুলভাবে আলোচিত হয়েছে, বিশেষ করে এ খাতের প্রধান অনুসঙ্গ সমবায় সমিতির নানা ধরনের অনিয়ম-দুর্নীতির সংবাদ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এ প্রেক্ষিতে ২০১৪ সালের ১৫ এপ্রিল টিআইবি ‘সমবায় সমিতি ব্যবস্থাপনা: সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করে এবং সমবায় সমিতি ব্যবস্থাপনায় সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সুপারিশ প্রণয়ন করে। গবেষণার ফলাফলের ভিত্তিতে সমবায় সমিতি তথা সার্বিক সমবায় খাতের ব্যবস্থাপনায় চিহ্নিত সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও অন্যান্য বিদ্যমান সমস্যার প্রেক্ষিতে জনগুরুত্বপূর্ণ এই খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের বিবেচনার জন্য...

    • Policy Brief on Question Paper Leakage

      পলিসি ব্রিফ এখানে  

    • Policy Brief on Local Government Institutions

      স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের সার্বিক উন্নয়নের জন্য সম্প্রতি বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে অধিকাংশ ক্ষেত্রে নিয়মিত নির্বাচন সম্পন্ন করা, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান-সংশ্লিষ্ট আইনগুলোর সংস্কার, প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদে তথ্যসেবা কেন্দ্র স্থাপন, অন-লাইন জন্ম নিবন্ধনের কার্যক্রম গ্রহণ, ইউনিয়ন পরিষদসহ অন্যান্য স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানে বার্ষিক উন্নয়ন বরাদ্দ নিয়মিত পৌঁছানোর ব্যবস্থা, ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে নিরীক্ষা কার্যক্রমে গতিশীলতা ও স্বচ্ছতা আনয়নের লক্ষ্যে বেসরকারি নিরীক্ষা সংস্থাকে দায়িত্ব প্রদান, তথ্য অবমুক্তকরণ নীতিমালা ২০১৫ প্রণয়ন ইত্যাদি। যার ফলশ্রুতিতে স্থানীয় সরকার পদ্ধতিতে ইতিবাচক পরিবর্তন এসেছে এবং স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহ আগের থেকে বেশি কার্যকর হবার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। পলিসি ব্রিফ এখানে।

    • বাংলাদেশের বিচারিক সেবায় সুশাসন নিশ্চিতে কিছু সুপারিশ

      ‘সেবাখাতে দুর্নীতি: জাতীয় খানা জরিপ’ টিআইবি’র একটি অন্যতম প্রধান গবেষণা কার্যক্রম। ১৯৯৭ সাল থেকে টিআইবি এই জরিপ ধারাবাহিকভাবে পরিচালনা করে আসছে। এই জরিপের মূল উদ্দেশ্য বাংলাদেশের খানাগুলোর অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সেবা খাতে দুর্নীতির প্রকৃতি ও মাত্রা নিরূপণ করা এবং জরিপে প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে দুর্নীতি প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে দিক-নির্দেশনামূলক সুপারিশ প্রদান করা। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৭ সালের জরিপে অন্তর্ভুক্ত খানাগুলো জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর’ ২০১৭ সময়ে বিভিন্ন সেবাখাত বা প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা গ্রহণকালে যে দুর্নীতির সম্মুখীন হয় তার ওপর তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এ জরিপে বিচারিক সেবাসহ ১৫টি খাতের ওপর বিশ্লেষণধর্মী ফলাফল উপস্থাপন করা হয়, যা ২০১৮ সালের ৩০ আগস্ট প্রকাশিত হয়। জরিপে অংশ নেওয়া মোট ১৫,৫৮১টি খানার মধ্যে, ৭.১ শতাংশ খানা বিভিন্ন মামলার বিচার সংক্রান্ত কাজে বিভিন্ন পর্যায়ের আদালতে বিচারিক সেবা নিয়েছে, আদালতের ধরন হিসেবে দেখা যায়, ৭৭.০ শতাংশ খানা দেওয়ানি আদালত, ২০.২ শতাংশ ফৌজদারি আদালত, ৪.২ শতাংশ খানা উচ্চ আদালত এবং ১.৫ শতাংশ বিশেষ আদালত ও ট্রাইব্যুনাল থেকে বিচারিক সেবা গ্রহণ...

    • পাসপোর্ট সেবার মানোন্নয়নে করণীয়

      ‘সেবাখাতে দুর্নীতি: জাতীয় খানা জরিপ’ টিআইবি’র একটি অন্যতম প্রধান গবেষণা কার্যক্রম। ১৯৯৭ সাল থেকে টিআইবি এই জরিপ ধারাবাহিকভাবে পরিচালনা করে আসছে। এই জরিপের মূল উদ্দেশ্য বাংলাদেশের খানাগুলোর অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সেবা খাতে দুর্নীতির প্রকৃতি ও মাত্রা নিরূপণ করা এবং জরিপে প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে দুর্নীতি প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে দিক-নির্দেশনামূলক সুপারিশ প্রদান করা। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৭ সালের জরিপে অন্তর্ভুক্ত খানাগুলো জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর’ ২০১৭ সময়ে বিভিন্ন সেবাখাত বা প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা গ্রহণকালে যে দুর্নীতির সম্মুখীন হয় তার ওপর তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এ জরিপে পাসপোর্টসহ ১৫টি খাতের ওপর বিশ্লেষণধর্মী ফলাফল উপস্থাপন করা হয়, যা ৩০ আগস্ট ২০১৮ তারিখে প্রকাশিত হয়।   জরিপে অংশ নেওয়া মোট ১৫,৫৮১টি খানার মধ্যে ৭.৫ শতাংশ খানার কোনো না কোনো সদস্য ২০১৭ সালে পাসপোর্ট সেবা নিয়েছে। এদের মধ্যে ৬৭.৩ শতাংশ দুর্নীতির শিকার হয়েছে এবং ঘুষের শিকার হয়েছে ৫৯.৩ শতাংশ। যেসব খানা ঘুষ বা নিয়ম-বহির্ভূত অর্থ দিয়েছে তাদের গড়ে ২,৮৮১ টাকা দিতে হয়েছে। এছাড়া সেবা গ্রহণকারী খানা সময়ক্ষেপণ (১৬.০%),...

    • ভূমি ব্যবস্থাপনা ও সেবা কার্যক্রমে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় করণীয়

      ‘সেবাখাতে দুর্নীতি: জাতীয় খানা জরিপ’ টিআইবি’র একটি অন্যতম প্রধান গবেষণা কার্যক্রম। ১৯৯৭ সাল থেকে টিআইবি এই জরিপ ধারাবাহিকভাবে পরিচালনা করে আসছে। এই জরিপের মূল উদ্দেশ্য বাংলাদেশের খানাগুলোর অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সেবা খাতে দুর্নীতির প্রকৃতি ও মাত্রা নিরূপণ করা এবং জরিপে প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে দুর্নীতি প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে দিক-নির্দেশনামূলক সুপারিশ প্রদান করা। ২০১৭ সালের জরিপে বিভিন্ন সেবাখাত বা প্রতিষ্ঠান থেকে জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর’ ২০১৭ পর্যন্ত নির্বাচিত বাংলাদেশের খানাসমূহ সেবা গ্রহণকালে যে দুর্নীতির সম্মুখীন হয় তার ওপর তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এ জরিপে ভূমি সেবাসহ ১৫টি খাতের ওপর বিশ্লেষণধর্মী ফলাফল উপস্থাপন করা হয়, যা ৩০ আগস্ট ২০১৮ তারিখে প্রকাশিত হয়।  জরিপে অংশ নেওয়া মোট ১৫,৫৮১টি খানার মধ্যে ১৬.০ শতাংশ খানা বিভিন্ন ধরনের ভূমি সেবা গ্রহণ করেছেন। ভূমি সেবা গ্রহণকারী খানাগুলোর মধ্যে মোট ৪৪.৯ শতাংশ খানা দুর্নীতির শিকার হয়েছে। গ্রামাঞ্চলে এ হার ৪৩.৩ শতাংশ ও শহরাঞ্চলে ৪৬.১ শতাংশ। সেবা গ্রহণকারী খানাগুলোর ৩৭.৯ শতাংশ ঘুষ বা নিয়ম-বহির্ভূত অর্থ দিয়েছে, যার পরিমাণ গড়ে...

    << < 1 2 3 4 5 6 7 8 > >> (8)

Policy Brief List