• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

Fact Finding Studies by year


  • Fact Finding Studies

    • Problems Related to Refuge Provided in Bangladesh to Forcibly Displaced Myanmar Nationals (Rohingya): An Assessment of Governance Challenges - Full Report (English)

      Rohingya issue is a historical crisis which can be traced back to colonial period (The Wall Street Journal, 2016)i. Since the recent influx starting at 25 August 2017, more than 5,09,000 new arrivals are reported as of 03 October (Inter Sector Coordination Group, October 2017)ii those are residing in 02 registered camps, 03 makeshift camps and in 07 spontaneous locations in Ukhia, Tecknaf and Bandarbans along with the existing Rohingyas in Bangladesh who came since 1991(ISCG, October 2017)iii. The United Nations has called the Rohingya the world’s most persecuted minority group and described the atrocities by Myanmar’s authorities as “ethnic cleansing” (The Conversation, September 2017)iv. Amnesty International has described it as ‘crime against humanity. Click herefor full report.  

    • Problems Related to Refuge Provided in Bangladesh to Forcibly Displaced Myanmar Nationals (Rohingya): An Assessment of Governance Challenges - Presentation (Bangla)

      উপস্থাপনা এখানে  

    • Problems Related to Refuge Provided in Bangladesh to Forcibly Displaced Myanmar Nationals (Rohingya): An Assessment of Governance Challenges - Executive Summary (English)

      Rohingya issue is a historical one that can be traced back to colonial period (The Wall Street Journal, 2016). Since the recent influx starting on 25 August 2017, more than 5,09,000 new arrivals are reported as of 03 October (Inter Sector Coordination Group, October 2017) those are residing in 0 registered camps, 3 makeshift camps and in 7 spontaneous locations in Ukhia, Teknaf and Bandarbans along with the existing Rohingyas in Bangladesh who came since 1991(ISCG, October 2017). The United Nations has called the Rohingyas the world’s most persecuted minority group and described the atrocities by Myanmar’s authorities as “ethnic cleansing” (The Conversation, September 2017). Amnesty International has described it as ‘crime against humanity’. Report here  

    • Problems Related to Refuge Provided in Bangladesh to Forcibly Displaced Myanmar Nationals (Rohingya): An Assessment of Governance Challenges - FAQ (Bangla)

      FAQ এখানে  

    • Good Governance in Passport Services: Challenges and Way out - Executive Summary (English)

      Passport is considered as an important public service. This service is regarded invaluable for exporting manpower, expansion of trade and commerce, treatment and foreign travel of citizens. The demand for passport has increased many-fold in the recent years, thanks to exports of manpower to the Middle East, and Southeast Asian countries, expansion of trade and commerce, migration to the developed countries, education, treatment and travelling. The applicants seeking passport service need to pay certain amount as fee; thus the government earns a notable amount of revenue from this service. During fiscal years 2010-11 to 2015-16, the government on average had earned revenue amounting to Tk 1100 crore (or Tk 11 billion) in a year from passport service2.  Apart from paying certain amount of fee, the applicants are allegedly compelled to endure some additional costs due to various forms of irregularities, harassment and corruption. Transparency International Bangladesh’s (TIB) research on...

    • Good Governance in Passport Services: Challenges and Way out - Full Report (Bangla)

      পাসপোর্ট একটি গুরুত্বপূর্ণ নাগরিক সেবা এবং একজন নাগরিকের জাতীয়তা সম্পর্কে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির নিদর্শন। বৈশ্বিকভাবে পাসপোর্ট শুধুমাত্র একজন নাগরিকের জাতীয় পরিচয়ই তুলে ধরে না, এর মাধ্যমে একটি জাতির আভিজাত্য, একটি দেশের ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও ভাবমূর্তি ফুটে ওঠে। বাংলাদেশে পাসপোর্ট সেবাকে একটি জনগুরুত্বপূর্ণ সেবাখাত হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই সেবা জনশক্তি রপ্তানি, ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার, চিকিৎসা এবং বিদেশ ভ্রমনে সহায়ক ভূমিকা পালন করে থাকে। বিগত বছরগুলোতে আমাদের দেশে মধ্যপ্রাচ্য ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশসমূহে জনশক্তি রপ্তানি, ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার, উন্নত দেশগুলোতে অভিবাসন, শিক্ষা, চিকিৎসা ও ভ্রমণের জন্য পাসপোর্টের চাহিদা অনেক বেড়েছে। যেহেতু পাসপোর্ট পাওয়ার জন্য আবেদনকারীদের নির্দিষ্ট অংকের ফি প্রদান করতে হয়, এ কারণে এ সেবার মাধ্যমে সরকার প্রতিবছর উল্লেখযোগ্য পরিমান রাজস্ব আয় করে থাকে। পাসপোর্ট খাত থেকে সরকার ২০১০-১১ হতে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে গড়ে বছর প্রতি ১১০০ কোটি টাকার রাজস্ব আহরণ করেছে এবং এ সময়ে গড় ব্যয় (উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন) হয়েছে বছরে প্রায় ২৩৫ কোটি টাকা১। মূল প্রতিবেদন

    • Good Governance in Passport Services: Challenges and Way out - Executive Summary (Bangla)

      পাসপোর্ট সেবা একটি জনগুরুত্বপূর্ণ সেবাখাত হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই সেবা জনশক্তি রপ্তানি, ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার, চিকিৎসা এবং বিদেশ ভ্রমনে সহায়ক ভূমিকা পালন করে থাকে। বিগত বছরগুলোতে আমাদের দেশে মধ্যপ্রাচ্য ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশসমূহে জনশক্তি রপ্তানি, ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার, উন্নত দেশগুলোতে অভিবাসন, শিক্ষা, চিকিৎসা ও ভ্রমণের জন্য পাসপোর্টের চাহিদা অনেক বেড়েছে। পাসপোর্ট সেবায় আবেদনকারীদের নির্দিষ্ট অংকের ফি প্রদান করতে হয় ফলে এ সেবার মাধ্যমে সরকার প্রতিবছর উল্লেখযোগ্য পরিমান রাজস্ব আহরণ করে থাকে। পাসপোর্ট খাত থেকে সরকার ২০১০-১১ হতে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে গড়ে বছর প্রতি ১১০০ কোটি টাকার রাজস্ব আহরণ করেছে২। পাসপোর্ট সেবায় নির্দিষ্ট অংকের ফি ছাড়াও বিভিন্ন অনিয়ম, হয়রানি ও দুর্নীতির কারণে আবেদনকারীদের বিভিন্ন পর্যায়ে অতিরিক্ত ব্যয় বহনে বাধ্য হওয়ার অভিযোগ রয়েছে। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) কর্তৃক ২০০৬ সালের পাসপোর্ট সেবা সংক্রান্ত গবেষণায় এ সেবায় প্রক্রিয়াগত জটিলতা, সেবার মান, অবকাঠামো ও জনবল সমস্যা, দালালের দৌরাত্ম্য, পুলিশী তদন্তে অনিয়ম ও দুর্নীতি এ খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠায়...

    • Good Governance in Passport Services: Challenges and Way out - FAQ (Bangla)

      FAQ এখানে

    • Good Governance in Passport Services: Challenges and Way out - Presentation (Bangla)

      Presentation Here

    • Good Governance in RMG Sector: Progress, Challenges and Way out - Full Report (Bangla)

      রানা প্লাজার দুর্ঘটনা বাংলাদেশে তৈরি পোশাক খাতে সুশাসনের ঘাটতি ও দুর্নীতির দৃশ্যমান উদাহরণ হিসেবে পরিগণিত। এ দুর্ঘটনার পর দেশি ও বিদেশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও অংশীজন এ খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠার ওপর জোর দেয়। টিআইবি’র গবেষণায় (অক্টোবর ২০১৩) এ খাতে দুর্ঘটনা ও কমপ্লায়েন্স ঘাটতির অন্যতম কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন অংশীজনের মধ্যে সমন্বয়হীনতা, দায়িত্বে অবহেলা, রাজনৈতিক প্রভাব, পারস্পরিক যোগ-সাজশে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতিকে চিহ্নিত করা হয় এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ২৫ দফা সুপারিশ পেশ করা হয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন অংশীজন কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগ ও বাস্তবায়নের অগ্রগতি পর্যবেক্ষণের জন্য টিআইবি ধারাবহিক ভাবে ২০১৪ ও ২০১৫ সালে দুইটি ফলোআপ গবেষণা পরিচালনা করে, যেখানে তৈরি পোশাক খাতে সুশাসনের চ্যালেঞ্জ হিসেবে ৬৩টি বিষয় চিহ্নিত করা হয় এবং ১০২ টি উদ্যোগ পর্যালোচনা করা হয়। উক্ত গবেষণা দুইটিতে দেখা যায়, রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পরবর্তী দুইবছরে সরকার ও বিভিন্ন অংশীজন ধারাবহিক ভাবে এ সকল উদ্যোগের ৩৪টি উদ্যোগ বাস্তবায়ন করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় টিআইবি গত একবছরে (২০১৫-১৬) বাকি ৬৮টি উদ্যোগের অগ্রগতির পর্যালোচনায় এ গবেষণা পরিচালনা করেছে। মূল প্রতিবেদন এখানে

    << < 1 2 3 4 5 6 > >> (6)

Fact Finding Studies List