• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

Diagnostic Study by year


  • Diagnostic Study

    • Governance Challenges in Land Deed Registration Service and Way Forward

      বাংলাদেশের সংবিধানের ৪২(১) অনুচ্ছেদে রাষ্ট্রের প্রত্যেক নাগরিকের সম্পত্তি অর্জন, ধারণ ও হস্তান্তরের অধিকার প্রদান করা হয়েছে। সম্পত্তি অর্জন, ধারণ ও হস্তান্তরের ক্ষেত্রে দলিল নিবন্ধন একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রক্রিয়া। দলিল নিবন্ধনের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে দলিলের বিশুদ্ধতার চ‚ড়ান্ত নিশ্চয়তা প্রদান করা; সম্পত্তি হস্তান্তর সম্পর্কে সর্বসাধারণকে জ্ঞাতকরণ; জালিয়াতি রোধ; কোনো সম্পত্তি পূর্বে হস্তান্তরিত হয়েছিল কি না তা অনুসন্ধানে তথ্যভান্ডার থেকে সহায়তা প্রদান; এবং স্বত্তে¡র দলিলের নিরাপত্তা প্রদান এবং মূল দলিল খোয়া গেলে বা ধ্বংসপ্রাপ্ত হলে মূল দলিলের অস্তিত্ব প্রমাণার্থে সহায়তা প্রদান করা। উপমহাদেশে ১৮৬৪ সালে দলিল নিবন্ধন পদ্ধতির প্রবর্তন হয় এবং পরবর্তীতে ‘নিবন্ধন আইন-১৯০৮’ অনুযায়ী মূল্য নির্বিশেষে সব ধরনের সম্পত্তি হস্তান্তরের জন্য নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করা হয়। নিবন্ধন আইন ১৯০৮ এর ১৭ ধারা অনুযায়ী বাধ্যতামূলকভাবে নিবন্ধনযোগ্য দলিলগুলো হচ্ছে মূল্য নির্বিশেষে সব ধরনের স্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তরের ক্ষেত্রে সাফ কবলা দলিল; হেবা/দানপত্র দলিল; বন্ধকী দলিল; সম্পত্তির বাটোয়ারা দলিল; বায়না চুক্তির দলিল; এওয়াজ বদল...

    • Dhaka WASA: Governance Challenges and Way forward

      বিশুদ্ধ পানি ও পয়নিষ্কাশন ব্যবস্থা জনস্বাস্থ্য রক্ষা ও উন্নয়নের জন্য অপরিহার্য বিষয় হিসেবে বিবেচিত। বিশুদ্ধ পানির প্রাপ্যতা একটি মৌল মানবাধিকার (জাতীয় পানি নীতি, ১৯৯৯)। পানি মানুষের বেঁচে থাকা, গৃহস্থালী থেকে শুরু করে কলকারখানায় উৎপাদন এবং টেকসই পরিবেশের জন্য অপরিহার্য উপাদান হিসেবে কাজ করে। সুপেয় এবং পরিচ্ছন্নতা ও পয়নিষ্কাশনের জন্য ব্যবহার্য পানির অধিকারকে সর্বাধিকার হিসেবে বিবেচনার নির্দেশনা রয়েছে (জাতীয় পানি আইন, ২০১৩)। মানুষের প্রয়োজন অনুযায়ী পানির নিরাপত্তা নিশ্চিত করার বিষয়টি পানি ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সাথে জড়িত। স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং সর্বস্তরের মানুষ ও প্রতিষ্ঠানের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ পানি খাতে শুদ্ধাচারের তিনটি মূল স্তম্ভ। এসব স্তম্ভ কতগুলো মূলনীতি যেমন- সততা, সমতা ও টেকসই কর্মকান্ডের  ওপর নির্ভরশীল (রহমান ও ইসলাম, ২০১৪)। জাতিসংঘ টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ৬ ও বাংলাদেশের সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় সকলের জন্য পানি ও পয়নিষ্কাশনের টেকসই ব্যবস্থাপনা ও প্রাপ্যতা নিশ্চিত করার তাগিদ দেওয়া হয়েছে।  বিস্তারিত জানতে নিচে ক্লিক করুন মূল প্রতিবেদন (বাংলা) ...

    • Indigenous and Dalit Peoples of Bangladesh: Challenges and Way Forward for Inclusion in Rights and Services

      A situation of inequality, discrimination, exclusion, and deprivation prevails in Bangladesh, in their diverse forms, which impacts on a significant portion of population due to their historical identities and marginalised positions in society (Roy, 2002; Shafie & Kilby, 2003; Goswami, 2004; Dyrhagen & Islam, 2006; Foley & Chowdhury, 2007; Ahsan & Burnip, 2007; Sarker & Davey, 2007; Nasreen & Tate, 2007; Bal, 2007; Zohir et al, 2008; Ali, 2013; Ali, 2014; MJF, 2016). This has remained as a bewildering scenario, although the Constitution of Bangladesh guarantees some concrete directives to establish social and economic justice in every spheres of society. The directives provide that all citizens are equal before law and are entitled to equal protection of law (Article 27); state shall endeavour to ensure equality of opportunity to all citizens (Article 19.1); state shall adopt effective measures to remove social and economic inequality and to ensure the equitable distribution of wealth...

    • সাভার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কার্যালয়: সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়

      শিক্ষা মানুষের একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মৌলিক অধিকার। আর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা হলো শিক্ষা ব্যবস্থার মূল স্তম্ভ। এখান থেকেই পরবর্তী শিক্ষার ভিত রচিত হয়। সরকার প্রাথমিক শিক্ষার গুরুত্বকে বিবেচনায় নিয়ে ১৯৮০ সালে দেশে অবৈতনিক সর্বজনীন প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯৩ সাল থেকে পাঁচ বছর মেয়াদি বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা প্রবর্তন করা হয়। প্রাথমিক শিক্ষায় সকল শিশুর ভর্তি নিশ্চিতকরণ ও গুণগত মান উন্নয়নে সরকার বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এসব কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- বেসরকারি বিদ্যালয় জাতীয়করণ ও অবকাঠামো উন্নয়ন, বিদ্যালয় গমনোপযোগী শতভাগ শিশু ভর্তি নিশ্চিতকরণ, সকল শিক্ষার্থীর হাতে বছরের শুরুতে বিনামূল্যে পাঠ্যবই পৌঁছে দেওয়া, শতভাগ শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তির আওতায় আনা, প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা চালুকরণ, ইত্যাদি। জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট  ৪ - এ (‘সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল’ বা সংক্ষেপে এসডিজি) সকলের জন্য অন্তর্ভুক্তিমূলক ও সমতাভিত্তিক গুণগত শিক্ষা নিশ্চিতকরণ এবং জীবনব্যাপী শিক্ষালাভের সুযোগ সৃষ্টির বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে। উক্ত অভীষ্টের ৪.১ ও ৪.২ এ ২০৩০ সালের মধ্যে সকল...

    • Working Environment & Worker’s Right in Tea Garden: Governance Challenges and Way Forward

      বাংলাদেশের অর্থনীতিতে চা শিল্পর গুরুত্ব অপরিসীম। ২০১৭ সালে বাংলাদেশে মোট চা উৎপাদন হয়েছে ৭৮.৯৫ মিলিয়ন কেজি এবং জিডিপিতে চা শিল্পের মোট অবদান ১৮২৫.২৫ কোটি টাকা। চা শিল্পে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে প্রায় ৫ লক্ষ লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে স্থায়ী ও অস্থায়ী ভিত্তিতে নিবন্ধনকৃত মোট চা বাগানের সংখ্যা হচ্ছে ১৬৪টি - যার মধ্যে মূলধারার চা বাগান রয়েছে ১৫৬টি। এ সকল চা বাগানে প্রায় এক ১,২২,৮৪০ জন শ্রমিক রয়েছে - যার মধ্যে ২১৯৯৭ জন শ্রমিক অস্থায়ী ভিত্তিতে কাজ করছে। এই প্রথাগত চা বাগানগুলো মূলত মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, সিলেট, চট্টগ্রাম ও রাঙ্গামাটিতে অবস্থিত। এই চা বাগানগুলো ব্রিটিশ আমল থেকে তৈরি করা হয়েছে যেখানে শ্রমিকরা স্থায়ীভাবে বাগান কর্তৃপক্ষের দেওয়া বাসস্থানে বসবাস করছে, তাদের জীবনের সাথে সম্পৃক্ত প্রায় সকল ধরনের সুযোগ-সুবিধা বাগান কর্তৃপক্ষ কর্তৃক দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। চা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়ন নিশ্চিতকরণে সরকারিভাবে বিভিন্ন আইন-কানুন প্রণয়ন ও উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে যেমন সংবিধান, শ্রমনীতি, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের ২০১৪ সালের নির্বাচনী ইশতেহার, বাংলাদেশ শ্রম আইন, শ্রম বিধিমালা...

    • Burimari Land Port & Customs Station and Mongla Port & Custom House: Governance Challenges in Import-Export and Way Out

      ১৯৫০ সালে যাত্রা শুরু হওয়া মোংলা সমুদ্র বন্দর দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সমুদ্র বন্দর। একইসাথে ১৯৫০ সালে খুলনার চালনা নামক স্থানে ‘চালনা শুল্ক কাচারি’র যাত্রা শুরু হয়, যা ১৯৬৫ সালে ‘মোংলা কাস্টম হাউজ’ নামে পরিবর্তিত হয়।দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে মোংলা বন্দরের ভূমিকা অতীব গুরুত্বপূর্ণ ও সম্ভাবনাময়। চলমান বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম তথা পদ্মা সেতু, রূপসা রেল সেতু ও খানজাহান আলী বিমানবন্দরসহ এই অঞ্চলের অবকাঠামোগত রূপান্তরের প্রেক্ষিতে মোংলা বন্দরের আন্তর্জাতিক, জাতীয় ও আঞ্চলিক বাণিজ্যিক গুরুত্ব অধিকতর বৃদ্ধি পেয়েছে।  বুড়িমারী স্থলবন্দরটি লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলায় অবস্থিত। ১৯৮৮ সালে বুড়িমারী স্থল শুল্ক স্টেশন প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি ২০০২ সালে স্থলবন্দর হিসেবে ঘোষিত হলেও এর আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয় ২০১০ সালে। আমদানি রপ্তানির পরিমাণ অনুযায়ী বুড়িমারী স্থলবন্দরটি বাংলাদেশের চতুর্থ বৃহত্তম স্থলবন্দর।  দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলনকে জোরদার করার লক্ষ্যে সরকারের সহায়ক শক্তি হিসেবে টিআইবি সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন সেবাখাতের ওপর গবেষণা ও নানামুখী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। বিভিন্ন সময়ে টিআইবি দেশের অর্থনীতি...

    • NGOs of Bangladesh Funded by Foreign Donations: Governance Challenges and Way Forward

      Non-Government Organisations (NGOs)1, popularly known as the third sector or development sector or differently termed as, or part of, civil society organisations (CSOs), have outstanding reputation for their participatory, empowering and democratic approaches to development. The development partners and academic world are therefore, interested in, and have tremendous support for, the role of NGOs in accelerating political development in the developing countries by virtue of promoting democratic practices. They anticipate that NGOs channel and process the demands and concerns of diverse interest groups to the state to help ensure legitimacy, accountability and transparency as well as strengthen state’s capacity for good governance (Mercer, 2002). From this perspective, NGOs have been playing roles to preach the ideas of good governance in the state mechanisms so that people get fair distribution of resources without any likelihood of deprivation induced by corruption and...

    • Private Healthcare: Governance Challenges and Way Out- Executive Summary (English)

      According to the National Household Survey (2015) of TIB, a large proportion of households (63.3%) receive healthcare services from private institutions alongside the public ones. According to the Health Bulletin 2015 of the Directorate General of Health Services (DGHS), a substantial number of Bangladeshi physicians (60.3%) is associated with private healthcare activities. Over the last four decades, the number of registered private healthcare service providing institutions has had an astounding growth – from mere 33 in 1982 it increased to 15,698 in 2017 (DGHS, 2017). This sector has been given importance in various government plans and policies. The Seventh Five Year Plan (FY 2016 - FY 2020) has emphasized on building a strong and effective regulatory mechanism, formulating government rules and regulations, ensuring delivery of information to the healthcare receivers on quality of healthcare service providers and developing robust and responsible professional organizations for...

    • Private Healthcare: Governance Challenges and Way Out - Full Report (Bangla)

      বাংলাদেশের জনগণের একটি বড় অংশ সরকারি স্বাস্থ্যসেবার পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান হতে স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করে। টিআইবি’র জাতীয় খানা জরিপ (২০১৫) অনুযায়ী স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণকারী খানাগুলোর ৬৩.৩% বেসরকারি খাত হতে সেবা গ্রহণ করে। সেবা প্রদানে চিকিৎসকদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ বেসরকারি চিকিৎসাসেবা কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ বুলেটিন (২০১৫) অনুযায়ী, বাংলাদেশের মোট চিকিৎসকের ৬০.২৭% বেসরকারি চিকিৎসাসেবা কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত। নিবন্ধিত বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৮২ সালে নিবন্ধিত বেসরকারি হাসপাতাল/ ক্লিনিক/ নার্সিং হোমের সংখ্যা ছিল ৩৩টি, যা ২০১৬-তে বৃদ্ধি পেয়ে ১৫,৬৯৮টিতে দাঁড়িয়েছে। মূল প্রতিবেদন  

    • Private Healthcare: Governance Challenges and Way Out - Executive Summary (Bangla)

      টিআইবি’র জাতীয় খানা জরিপ (২০১৫) অনুযায়ী বাংলাদেশের জনগণের একটি বড় অংশ (৬৩.৩% খানা) সরকারি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান হতে চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করে। বাংলাদেশের চিকিৎসকদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ (৬০.৩%) বেসরকারি চিকিৎসাসেবা কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত (স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, হেলথ বুলেটিন ২০১৫)। গত চার দশকে নিবন্ধিত বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে - ১৯৮২ সালে ৩৩টি থেকে বর্তমানে এর সংখ্যা ১৫,৬৯৮টি (স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, ২০১৭)। সরকারের বিভিন্ন পরিকল্পনা এবং নীতিতেও এ খাতের ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় (২০১৬-২০২১) বেসরকারি স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নে একটি শক্তিশালী এবং কার্যকর নিয়ন্ত্রণ কাঠামো, সরকারি বিধি-বিধান তৈরি, স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর মান বিষয়ক তথ্য সেবাগ্রহীতাকে সরবরাহ নিশ্চিত করা, এবং শক্তিশালী ও দায়িত্বশীল পেশাজীবী সংগঠন গড়ে তোলার ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। জাতীয় স্বাস্থ্যনীতিতে (২০১১) বেসরকারি সংস্থাগুলোকে স্বাস্থ্যসেবায় সম্পূরক ভূমিকা পালনে উৎসাহিত করা, মানসম্পন্ন চিকিৎসাসেবা প্রাপ্তি নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয়...

    << < 1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 > >> (11)

Diagnostic Study List