• header_en
  • header_bn

 

Corruption increases poverty and injustice. Let's fight it together...now

 

Studies by year


  • Research & Policy

    • বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) এর সেবা কার্যক্রমে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় কিছু সুপারিশ

      ‘সেবাখাতে দুর্নীতি: জাতীয় খানা জরিপ’ টিআইবি’র একটি অন্যতম প্রধান গবেষণা কার্যক্রম। ১৯৯৭ সাল থেকে টিআইবি এই জরিপ  ধারাবাহিকভাবে পরিচালনা করে আসছে। এই জরিপের মূল উদ্দেশ্য বাংলাদেশের খানাগুলোর অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সেবা খাতে দুর্নীতির প্রকৃতি ও মাত্রা নিরূপণ করা এবং জরিপে প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে দুর্নীতি প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে দিক-নির্দেশনামূলক সুপারিশ প্রদান করা। ২০১৭ সালের জরিপে অন্তর্ভুক্ত খানাগুলো জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর’ ২০১৭ সময়ে বিভিন্ন সেবাখাত বা প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা গ্রহণকালে যে দুর্নীতির অভিজ্ঞতা হয় তার ওপর তথ্য সংগ্রহ করা হয়। জরিপে বিআরটিএসহ ১৫টি খাতের ওপর বিশ্লেষণধর্মী ফলাফল উপস্থাপন করা হয়, যা ৩০ আগস্ট ২০১৮ তারিখে প্রকাশিত হয়।  পলিসি ব্রিফ এখানে  

    • বাংলাদেশে প্রাথমিক শিক্ষায় উন্মুক্ত স্কুল তথ্যের ব্যবহার: স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে করণীয়

      বাংলাদেশে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে সরকারি ও নাগরিক উদ্যোগে বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রম লক্ষ করা যায়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সরকারি উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে স্কুল মনিটরিং বোর্ড, মা সমাবেশ, অভিভাবক সমাবেশ, সিটিজেন চার্টার ইত্যাদি। সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি নাগরিক উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে উন্মুক্ত তথ্য বোর্ড, সিটিজেন রিপোর্ট কার্ড, অংশগ্রহণমূলক মা ও অভিভাবক সমাবেশ, স্যাটেলাইট তথ্য ও পরামর্শ ডেস্ক ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে সভা ইত্যাদি। নাগরিক উদ্যোগের অংশ হিসেবে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) দেশের ৩৭টি জেলা ও ৮টি উপজেলাসহ মোট ৪৫টি এলাকায় সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) এর মাধ্যমে এবং ক্যাম্পেইন ফর পপুলেশন এডুকেশন (ক্যাম্পে) তার নির্বাচিত এলাকার বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তথ্যের উন্মক্তকরণ ও স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠায় কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তবে এসব সরকারি এবং নাগরিক উদ্যোগের মাধ্যমে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধিতে উন্মুক্ত তথ্যের তুলনামূলক অবদান সম্পর্কে বস্তুনিষ্ঠ গবেষণার অনুপস্থিতি রয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষায় তথ্যের উন্মুক্তকরণে সরকারি ও...

    • Burimari Land Port & Customs Station and Mongla Port & Custom House: Governance Challenges in Import-Export and Way Out

      ১৯৫০ সালে যাত্রা শুরু হওয়া মোংলা সমুদ্র বন্দর দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সমুদ্র বন্দর। একইসাথে ১৯৫০ সালে খুলনার চালনা নামক স্থানে ‘চালনা শুল্ক কাচারি’র যাত্রা শুরু হয়, যা ১৯৬৫ সালে ‘মোংলা কাস্টম হাউজ’ নামে পরিবর্তিত হয়।দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে মোংলা বন্দরের ভূমিকা অতীব গুরুত্বপূর্ণ ও সম্ভাবনাময়। চলমান বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম তথা পদ্মা সেতু, রূপসা রেল সেতু ও খানজাহান আলী বিমানবন্দরসহ এই অঞ্চলের অবকাঠামোগত রূপান্তরের প্রেক্ষিতে মোংলা বন্দরের আন্তর্জাতিক, জাতীয় ও আঞ্চলিক বাণিজ্যিক গুরুত্ব অধিকতর বৃদ্ধি পেয়েছে।  বুড়িমারী স্থলবন্দরটি লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলায় অবস্থিত। ১৯৮৮ সালে বুড়িমারী স্থল শুল্ক স্টেশন প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি ২০০২ সালে স্থলবন্দর হিসেবে ঘোষিত হলেও এর আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয় ২০১০ সালে। আমদানি রপ্তানির পরিমাণ অনুযায়ী বুড়িমারী স্থলবন্দরটি বাংলাদেশের চতুর্থ বৃহত্তম স্থলবন্দর।  দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলনকে জোরদার করার লক্ষ্যে সরকারের সহায়ক শক্তি হিসেবে টিআইবি সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন সেবাখাতের ওপর গবেষণা ও নানামুখী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। বিভিন্ন সময়ে টিআইবি দেশের অর্থনীতি...

    • Governance and Integrity in Election Manifestos of Political Parties in Bangladesh

      Since independence, Bangladesh has experienced different forms of systems and governments – from electoral democracy to military rule, from one party to multi-party system, and from presidential to parliamentary legislature. Likewise, the party system experienced noteworthy changes since the birth of Bangladesh (Jahan, 2015). During the first three years after independence (1972-1975), the country moved from a one party dominant to a single party system. During the 15 years of military rule (19751990) the emergence of state-sponsored political parties was observed with the control of government power, allowing multiple political parties to operate in opposition with certain restrictions. After the restoration of electoral democracy in 1991, there was initially (1991-2001) a two-party dominant system which later changed into two electoral alliances led by the two major parties. After a two-year military-backed caretaker government system (2007-2008), a one party dominant system was...

    • আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থার সুশাসন নিশ্চিতে কিছু সুপারিশ

      আইনের শাসন সমুন্নত রাখা, মানবাধিকার রক্ষা, সকল নাগরিকের সমান অধিকার ও নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা, অপরাধ চিহ্নিত ও প্রতিরোধ করা, আইন লঙ্ঘনকারীকে বিচারের আওতায় আনা, শান্তি ও জনশৃঙ্খলা রক্ষা করা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাসমূহের (থানা পুলিশ, র‌্যাব, ট্রাফিক পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ, আনসার, ডিটেক্টিভ ব্রাঞ্চ, স্পেশাল ব্রাঞ্চ, সিআইডিসহ অন্যান্য বাহিনী যেমন, রেলওয়ে পুলিশ) প্রধান কাজ। এছাড়াও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাসমূহ ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ ও এ সংক্রান্ত আইন-কানুন বাস্তবায়ন করে থাকে। এ সকল কার্যক্রম সম্পাদনের মাধ্যমে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাসমূহ সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও অগ্রগতি সাধনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। প্রত্যক্ষভাবে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল ২০১২ এর আওতাভুক্ত না হলেও, আইনের রক্ষক ও রাষ্ট্রের অতীব গুরত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাসমূহে শুদ্ধাচার, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা এই সংস্থাসমূহের নিজেদের তথা জাতীয় প্রত্যাশা। টেকসই উন্নয়ন অভিষ্ট ২০৩০ অনুযায়ী বিশেষ করে অভিষ্ট ১৬ এর ১৬.৩, ১৬.৪, ১৬.৫, ১৬.৬ এবং ১৬.১০ অনুযায়ী আইন রক্ষাকারী সংস্থাসমূহের সুশাসন...

    • Corruption in Service Sectors: National Household Survey 2017

      It is widely recognised that corruption is one of the major obstacles to poverty reduction and development. In Bangladesh, issues around corruption are central to everyday discussions and concerns of general people, and occupy much of the spaces in mass media. National policies and strategic papers have emphasised on establishing good governance, enforcing law, and creating a people friendly and pro-poor administrative system in order for effective prevention of corruption. Corruption can occur at various levels of national and socio-economic activities. Corruption occurs in the form of illegal transactions of large sums of money by abuse of power through the network of the influential people at policy level with the involvement of politics, administration and private sector. This network of corruption negatively affects country’s socio-economic aspects both at micro and macro levels. This type of corruption is usually called grand corruption. On the other hand, the service...

    • NGOs of Bangladesh Funded by Foreign Donations: Governance Challenges and Way Forward

      Non-Government Organisations (NGOs)1, popularly known as the third sector or development sector or differently termed as, or part of, civil society organisations (CSOs), have outstanding reputation for their participatory, empowering and democratic approaches to development. The development partners and academic world are therefore, interested in, and have tremendous support for, the role of NGOs in accelerating political development in the developing countries by virtue of promoting democratic practices. They anticipate that NGOs channel and process the demands and concerns of diverse interest groups to the state to help ensure legitimacy, accountability and transparency as well as strengthen state’s capacity for good governance (Mercer, 2002). From this perspective, NGOs have been playing roles to preach the ideas of good governance in the state mechanisms so that people get fair distribution of resources without any likelihood of deprivation induced by corruption and...

    • Parliament Watch, 10th Parliament 14th – 18th Session (January – December 2017) - Ex. Summary (English)

      The main objectives of a parliamentary system of democracy are to hold discussions and thereby take decisions on important national issues, enactment of necessary laws for the interests of the country, reach consensus on issues concerning national interests and lead the country keeping people’s aspirations and world context under consideration. In line with these objectives public representation, enactment of laws, and making the government accountable are three major businesses of a parliament. Parliament members elected by citizens, thus, make a government accountable through different motions and discussions - question-answer sessions, notices on matters of public importance, discussions on President’s Speech and debate on budget, making of laws and functioning of parliamentary standing committees. Executive Summary here  

    • Parliament Watch, 10th Parliament 14th – 18th Session (January – December 2017) - Full Report (Bangla)

      জাতীয় সংসদ হলো জাতীয় সততা ব্যবস্থার অন্যতম স্তম্ভ এবং সংসদীয় সরকার ব্যবস্থায় রাষ্ট্রীয় কাঠামোর মৌলিক অঙ্গ। সংসদীয় গণতন্ত্রের মূল উদ্দেশ্য হলো সংসদে আলোচনা করে জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ, দেশের স্বার্থে আইন প্রণয়ন, জাতীয় স্বার্থ সম্পর্কিত বিষয়গুলোতে ঐকমত্যে পৌঁছানো, এবং সেই সাথে দেশের মানুষের আশা-আকাক্সক্ষা ও বিশ্ব পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে দেশের নেতৃত্ব দেওয়া। সংসদের কাজকে প্রধানত তিন ভাগে ভাগ করা হয়: প্রতিনিধিত্ব, আইন প্রণয়ন ও তদারকি। পুরো প্রতিবেদনের জন্য এখানে ক্লিক করুন

    • Parliament Watch, 10th Parliament 14th – 18th Session (January – December 2017) - Ex. Summary (Bangla)

      সংসদীয় গণতন্ত্রের মূল উদ্দেশ্য হলো সংসদে আলোচনা করে জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ, দেশের স্বার্থে আইন প্রণয়ন, জাতীয় স্বার্থ সম্পর্কিত বিষয়গুলোতে ঐকমত্যে পৌঁছানো, এবং সেই সাথে দেশের মানুষের আশা-আকাক্সক্ষা ও বিশ্ব পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে দেশের নেতৃত্ব দেওয়া। সংসদের কাজকে প্রধানত তিন ভাগে ভাগ করা হয়: প্রতিনিধিত্ব, আইন প্রণয়ন ও তদারকি। জনপ্রতিনিধিগণ প্রশ্নোত্তর পর্ব, জনগুরুত্বসম্পন্ন নোটিস, বিধি অনুযায়ী বিভিন্ন বক্তব্য, আইন প্রণয়ন এবং কমিটি কার্যক্রমের মাধ্যমে সরকারের জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে পারেন। এখানে ক্লিক করুন।

    << < 1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31 32 33 34 35 36 37 38 39 40 > >> (52)